আর্জেন্টাইন রাউলের গোলে চ্যাম্পিয়ন কিংস

আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড রাউল অস্কার বেচেরার গোলে ফেডারেশন কাপ ফুটবলের শিরোপা ধরে রেখেছে বসুন্ধরা কিংস। রোববার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের ফাইনালে বসুন্ধরা কিংস ১-০ গোলে হারিয়েছে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবকে। ম্যাচের ৫২ মিনিটে ব্রাজিলিয়ান জোনাথন ফার্নান্দেজের মাঝমাঠ থেকে বাড়ানো বল ধরে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে কোনাকুনি শটে গোল করেন আর্জেন্টাইন রাউল অস্কার বেচেরা। এবারই প্রথম ফাইনালে ওঠা সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের দুর্ভাগ্য যে তারা অন্তত তিনটি ভালো সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি। রাউলের গোলে পিছিয়ে পড়ার পর সাইফ আপ্রাণ চেষ্টা করেছে ম্যাচে ফিরতে, সুযোগও এসেছিল। কিন্তু নাইজেরিয়ান কেনেথের একাধিক শট বাইরে চলে গেলে ম্যাচে ফেরা হয়নি সাইফের। জাতীয় দলের গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকু ফাইনালেও দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়েছেন। নাইজেরিয়ান কেনেথের দুটি শট ফিরিয়ে দিয়ে দলকে গোল থেকে রক্ষা করেছেন। সাইফের একের পর এক আক্রমণ রুখে ১-০ গোলের ব্যবধানের জয় নিয়েই শিরোপা নিশ্চিত করে বসুন্ধরা কিংস। ঘরোয়া ফুটবলের শীর্ষ লিগে ওঠার পর এটি বসুন্ধরা কিংসের চতুর্থ ট্রফি জয়। অভিষেক আসরে দলটি জিতেছিল প্রিমিয়ার লিগ ও স্বাধীনতা কাপ। গত মৌসুমে জিতেছিল ফেডারেশন কাপ। ট্রফি ধরে রাখার মাধ্যমে আরেকটি মৌসুম শুরু হলো কিংসের। দুই দলের একাদশ বসুন্ধরা কিংস: আনিসুর রহমান জিকু, তপু বর্মন (অধিনায়ক), বিশ্বনাথ ঘোষ, মাসুক মিয়া জনি, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, জোনাথন ফার্নান্দেজ, রাউল অস্কার বেচেরা, রবসন সিলভা, মতিন মিয়া, খালেদ সাফেই ও রিমন হোসেন। সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব: পাপ্পু হোসেন, রহমত মিয়া, ইয়াসিন আরাফাত, সিরোজিউদ্দিন, রিয়াদুল হাসান রাফি (অধিনায়ক), ফয়সাল আহমেদ ফাহিম, জন ওকোলি, শাহেদুল আলম শাহেদ, আরিফু রহমান, ইমানুয়েল আরিওয়াচুকু ও কেনেথ নোকে। রেফারি : জালাল উদ্দিন। আরআই/এসএএস/জিকেএস

আর্জেন্টাইন রাউলের গোলে চ্যাম্পিয়ন কিংস

আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড রাউল অস্কার বেচেরার গোলে ফেডারেশন কাপ ফুটবলের শিরোপা ধরে রেখেছে বসুন্ধরা কিংস। রোববার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের ফাইনালে বসুন্ধরা কিংস ১-০ গোলে হারিয়েছে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবকে।

ম্যাচের ৫২ মিনিটে ব্রাজিলিয়ান জোনাথন ফার্নান্দেজের মাঝমাঠ থেকে বাড়ানো বল ধরে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে কোনাকুনি শটে গোল করেন আর্জেন্টাইন রাউল অস্কার বেচেরা।

এবারই প্রথম ফাইনালে ওঠা সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের দুর্ভাগ্য যে তারা অন্তত তিনটি ভালো সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি। রাউলের গোলে পিছিয়ে পড়ার পর সাইফ আপ্রাণ চেষ্টা করেছে ম্যাচে ফিরতে, সুযোগও এসেছিল। কিন্তু নাইজেরিয়ান কেনেথের একাধিক শট বাইরে চলে গেলে ম্যাচে ফেরা হয়নি সাইফের।

জাতীয় দলের গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকু ফাইনালেও দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়েছেন। নাইজেরিয়ান কেনেথের দুটি শট ফিরিয়ে দিয়ে দলকে গোল থেকে রক্ষা করেছেন। সাইফের একের পর এক আক্রমণ রুখে ১-০ গোলের ব্যবধানের জয় নিয়েই শিরোপা নিশ্চিত করে বসুন্ধরা কিংস।

ঘরোয়া ফুটবলের শীর্ষ লিগে ওঠার পর এটি বসুন্ধরা কিংসের চতুর্থ ট্রফি জয়। অভিষেক আসরে দলটি জিতেছিল প্রিমিয়ার লিগ ও স্বাধীনতা কাপ। গত মৌসুমে জিতেছিল ফেডারেশন কাপ। ট্রফি ধরে রাখার মাধ্যমে আরেকটি মৌসুম শুরু হলো কিংসের।

দুই দলের একাদশ

বসুন্ধরা কিংস: আনিসুর রহমান জিকু, তপু বর্মন (অধিনায়ক), বিশ্বনাথ ঘোষ, মাসুক মিয়া জনি, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, জোনাথন ফার্নান্দেজ, রাউল অস্কার বেচেরা, রবসন সিলভা, মতিন মিয়া, খালেদ সাফেই ও রিমন হোসেন।

সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব: পাপ্পু হোসেন, রহমত মিয়া, ইয়াসিন আরাফাত, সিরোজিউদ্দিন, রিয়াদুল হাসান রাফি (অধিনায়ক), ফয়সাল আহমেদ ফাহিম, জন ওকোলি, শাহেদুল আলম শাহেদ, আরিফু রহমান, ইমানুয়েল আরিওয়াচুকু ও কেনেথ নোকে।

রেফারি : জালাল উদ্দিন।