চুয়াডাঙ্গায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৪ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের জরিমানা

চুয়াডাঙ্গায় অনিয়মের অভিযোগে চারটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে জরিমানা করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নির্বাহী ম্যাজিট্রেট মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সদর হাসপাতাল সড়কের বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে এ অভিযান চালান।

চুয়াডাঙ্গায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৪ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের জরিমানা
ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৪ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের জরিমানা

অভিযানে মোট ৪টি প্রতিষ্ঠানকে ১৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অভিযান চলাকালে এক মালিক তার ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং একজন মালিক তার ফার্মেসী বন্ধ করে সটকে পড়ে। লাইসেন্স ছাড়াই দীর্ঘদিন ধরে তারা তাদের প্রতিষ্ঠান চালিয়ে যাচ্ছিল। ভ্রাম্যমাণ আদালতের ভয়ে তারা তাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে সটকে পড়ে।
আদালত সুত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নির্বাহী ম্যাজিট্রেট মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালায়। অভিযানে মেডিকেল প্র্যাকটিস এবং বেসরকারী ক্লিনিক ও ল্যাবরেটরী (নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাদেশ ১৯৮২ এর ১৩ ধারায় চুয়াডাঙ্গা সদর হামপাতাল সড়কের মর্ডান প্যাথলজিকে ৫ হাজার টাকা, চুয়াডাঙ্গা ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ৫ হাজার টাকা, ডিজিটাল বাংলা এক্স-রে’র মালিককে ৩ হাজার টাকা ও সেন্ট্রাল মেডিকেল সেন্টারকে ৩ হাজার টাকা সর্বমোট ১৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
এদিকে, অভিযান চলাকালে সদর হাসপাতাল সড়কের তুহিন সার্জিক্যাল অ্যান্ড ফামের্সী ও আনারুল মেডিকেল সেন্টারের মালিক তাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে সটকে পড়ে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে ওই দুটি প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স ছাড়াই দীর্ঘদিন ধরে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। 
ভ্রাম্যমাণ আদালতের ভয়ে তারা পালিয়ে যায়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের সহযোগীতায় ছিলেন পেশকার সোবহান আলী ও চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশের একটি টিম। জনস্বার্থে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান জানান। এ সময় তিনি আরও জানান, যে সমস্ত প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে চলে গেছে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে কঠিন ব্যবস্থা নেয়া হবে।