চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জ্ঞানতাপস মকবুলার রহমানের ইন্তেকাল; রাস্ট্রীয় মর্যদায় দাফন

চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও সাবেক আলমডাঙ্গা উপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান মুন্সীগঞ্জ বাজারের মরহুম ডা. মকছুদ আলীর একমাত্র ছেলে জ্ঞানতাপস মকবুলার রহমান (৯৫) ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টায় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জ্ঞানতাপস মকবুলার রহমানের ইন্তেকাল; রাস্ট্রীয় মর্যদায় দাফন
ফাইল ছবি

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও চার মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। আজ শুক্রবার বেলা আড়াইটায় মুন্সীগঞ্জ ঈদগাহ মাঠে জানাযা শেষে সেখানকার গোরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়। তার মৃত্যুতে গোটা চুয়াডাঙ্গা জেলায় শোকের ছায়া নেমে আসে।
 উল্লেখ্য, মকবুলার রহমান ১৯২৬ খ্রি. ১৩৩৩ বঙ্গাব্দের ১ আষাঢ় চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার নাগদহ গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় ও শান্তিনিকেতন থেকে উচ্চতর ডিগ্রী নিয়ে তিনি ১৯৫০ সালে মুন্সীগঞ্জ একাডেমীতে প্রধান শিক্ষক পদে যোগদান করেন। ১৯৬৮ থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত তিনি জেহালা ইউনিয়ন পরিষদের প্রেসিডেন্ট ছিলেন। তৎকালীন চুয়াডাঙ্গা মহাকুমার ইউনিয়ন কাউন্সিল গুলোর মুখপত্র ‘পাক্ষিক গ্রাম’ পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন তিনি। ১৯৬৬ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর তাকে সভাপতি করে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত টানা ৭ বছর তিনি ক্লাবের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৭ সালের ২০ নভেম্বর চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ প্রতিষ্ঠার পর তিনি প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন।
  ৫০ বছর আগে পাকিস্তানী বাহিনীর হাতে আটক হয়ে নির্যাতিত হন। ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর ফায়ারিং স্কোয়াডে তার মৃত্যু নির্ধারিত হয়েছিলো। কিন্তু তিনি মারা গেলেন ২০২১ সালের ২১ জানুয়ারি।