চা পাতার এতগুণ, চুল হয় দারুণ

চায়ের উপকারিকা সম্পর্কে বললে প্রথমেই আসে মাথা ব্যথা সারিয়ে তোলার কথা। যদিও বৈজ্ঞানিকভাবে তা আসলে কতটা কার্যকর তার কোন ব্যাখ্যা নেই। ফেলনা চা-পাতার আছে অসাধারণ গুণ। যা জানার পর থেকে চা ...

চা পাতার এতগুণ, চুল হয় দারুণ

চায়ের উপকারিকা সম্পর্কে বললে প্রথমেই আসে মাথা ব্যথা সারিয়ে তোলার কথা। যদিও বৈজ্ঞানিকভাবে তা আসলে কতটা কার্যকর তার কোন ব্যাখ্যা নেই।

ফেলনা চা-পাতার আছে অসাধারণ গুণ। যা জানার পর থেকে চা তৈরির পর টি ব্যাগ বা চা-পাতা ফেলে না দিয়ে ব্যবহার করতে পারেন অজানা অনেক কাজে। চাপাতা ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে শুকিয়ে রাখুন। কারণ এই ফেলনা চা-পাতা ও টি ব্যাগগুলোই আপনার অর্থ সাশ্রয় করবে প্রতিদিন। চা-পাতা ফেলে না দিয়ে ব্যবহার করা যায় দারুণ সব কাজে আর বাঁচানো যায় সময়-অর্থ দুটোই! এখনি জেনে নিন চা-পাতার ১৬টি অসাধারণ ব্যবহার সম্পর্কে-
 
কার্পেট পরিষ্কার করতে: বেশির ভাগ কার্পেটেই ময়লা আটকে থাকে তাই তৈরি হয় বাজে গন্ধ। আধা ভেজা ব্যবহৃত চা পাতা কার্পেটে ছড়িয়ে দিন। সম্পূর্ণ শুকিয়ে গেলে ঝাড়ু দিয়ে ফেলুন বা ভ্যাকুয়াম ক্লিন করে নিন। বাজে গন্ধ ও ময়লা সব গায়েব।
 
আসবাবপত্র চকচকে করতে: ফেলে দেয়া চা পাতার ব্যাগগুলো শুকিয়ে রেখে দিন। এবার আপনার শখের কাঠের আসবাবপত্রগুলো প্রায় শুকনো ব্যবহৃত ব্যাগ দিয়ে ঘষে নিন, দেখবেন একদম নতুনের মতো চকচকে হয়ে উঠবে। আসবাবপত্রের আয়না বা যে কোন আয়না পরিষ্কার ও চকচকে করতে ফেলে দেয়া চাপাতা গ্লাস ক্লিনার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন অনায়াসে।
 
পোকামাকড় ও পোড়ার জ্বালা: পোকা কামড় দিয়েছে বা পুড়ে গিয়েছে কোথাও? একটা ব্যবহৃত টি ব্যাগ ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে রাখুন। পোকা কামড় ও পোড়ার জ্বালা সব যন্ত্রণা নিমিষেই শেষ হয়ে যাবে।
 
চোখফোলা ভাব: অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়ায় ও বিভিন্ন রকমের শারীরিক কারণে চোখের পাতাও ফুলে যেতে পারে, ঝুলে পড়তে পারে। বেশি ফুলে গেলে চোখের পাতা খোলা অসম্ভব হয়ে পড়ে। চোখের ফোলা ভাব দূর করতেও এটা দারুণ কাজে দেয়। পাতলা কাপড়ে চা পাতা বেঁধে পুঁটলি করেও ব্যবহার করতে পারেন।
 
ঘামের গন্ধ দূর করতে: শরীর ও পা থেকে ঘামের দুর্গন্ধ দূর করতে গরম পানির মাঝে ফেলনা চা-পাতা দিয়ে গোসল ও পা ভিজিয়ে রাখুন ঘামের গন্ধ দূর হবে।
 
মাউথওয়াশ: মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে এবং দীর্ঘসময় মুখ ফ্রেশ রাখতে কে না চায়। দাঁত মাজার পর ও দাঁত কোণায় জমে থাকা ময়লা সহজে বের হতে চায় না। তাই অনেকে মাউথওয়াশ ব্যবহার করেন। বাজার থেকে না কিনে ঘরেই তৈরি করে নিতে পারেন ফেলনা চা-পাতার মাউথওয়াশ। ব্যবহৃত চা-পাতার সাথে একটু পুদিনে পাতা ও সামান্য লবণ দিয়ে জ্বাল করে ঘন লিকার তৈরির করুন। এই মিশ্রণ ব্যবহার করুন কুলি করতে, অনেক ভালো কাজ করবে মাউথওয়াশ হিসেবে।
 
চুলের যত্নে কন্ডিশনার: রোদ, ধুলোবালি এবং আবহাওয়ার কারণে চুলের সৌন্দর্য কমে যায়। চুলের যত্নে কন্ডিশনার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। চিনি ছাড়া চা পাতা নিয়ে এতে আরও পানি দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে লিকার করে নিন। চুল শ্যাম্পু করার পর জ্বাল দেয়া লিকার দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। নিয়মিত ব্যবহার চুল চকচকে হয়ে উঠবে।
 
রক্ত পড়া বন্ধ করতে: শেভ করতে গিয়ে মুখ কেটে গেছে? একটা ব্যবহৃত টি ব্যাগ ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে কাটা স্থানে লাগিয়ে রাখুন। আরাম তো পাবেনই, রক্তপাতও বন্ধ হবে।
 
ভাত রান্নায়: জেসমিন টি বা এমন যে কোন ফ্লেভারের টি ব্যাগ ভাত রান্নার শেষ দিকে পাতিলে দিয়ে দিতে পারেন। ভাতের দানায় দানায় মিষ্টি একটা গন্ধ হবে যা খাবারে আনবে তৃপ্তি।
 
ফ্রিজ সতেজ রাখতে: প্রতিদিনের ব্যবহৃত টি ব্যাগ রেখে দিন ফ্রিজে। চা-পাতা হলে টিস্যুতে মুড়ে রাখুন। ফ্রিজ থাকবে সতেজ ও পরিষ্কার, কোন রকম ফ্রেশনার ছাড়াই।
 
জুতার থেকে ঘামের গন্ধ দূর করতে:
ব্যবহৃত চা-পাতা ধুয়ে শুকিয়ে রাখুন। তারপর আপনার জুতোর মাঝে বা জুতোর আলমারিতে রেখে দিন। ঘামের বাজে গন্ধ আর কখনোই জুতাতে হবে না। টি ব্যাগও রাখতে পারেন।
 
বাথরুম সতেজ রাখতে: বাথরুম প্রতিদিন ব্যবহার করতেই হয় আর ব্যবহারের পরে বাথরুমে সৃষ্টি হয় বাজে গন্ধ। আর কোন অতিথি যদি এসে দেখেন বাথরুমের এ রকম অবস্থা তাদের সামনে ভীষণ লজ্জায় পড়তে হয়। চা পাতা ও কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল ছিটিয়ে বাথরুমে রাখুন এবার দেখুন বাথরুম গন্ধ নিমিষেই দূর হয়ে গেছে।
 
কাপড় রাখার আলমারি: বর্ষাকালে কাপড় রাখার আলমারিতে স্যাঁতস্যাঁতে বাজে গন্ধ হয়। তাই আলমারিতে ফেলে দেওয়া চা-পাতা পাতলা কাপড়ে পুটলি করে রাখতে পারেন যা স্যাঁতস্যাঁতে গন্ধ দূর করবে। রাখতে পারেন স্কুল কলেজে যাওয়ার কাপড়ের ব্যাগেও।
 
তেল চিটচিটে দূর করতে: তেল লাগানো চিটচিটে থালা বাসন বা হাঁড়ি পাতিল পরিষ্কার করতে চা-পাতার জুড়ি নেই। দামী ডিশ ওয়াসার বারের বদলে রাতের বেলা সিংকে পানি দিয়ে তাতে কিছু ব্যবহৃত চা-পাতা দিয়ে দিন। তেল চিটচিটে বাসন এতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে স্বাভাবিক ভাবেই ধুয়ে নিন। একদম ঝকঝকে হয়ে উঠবে।
 
মাকড়সা ও ইঁদুরের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে: অনেক দিন ঘর ঝাড়ামোছা না হলে ঘরে বাসা বাধে মাকড়সা ও মাকড়সার জাল। মাকড়সা এবং এই ধরনের ছোট পোকামাকড় চা পাতার গন্ধ খুবই অপছন্দ করে। তাই ঘর থেকে মাকড়সা দূর করতে ব্যবহৃত টি ব্যাগ বা চা পাতা ঘরের কোণায় কোণায় দিয়ে রাখুন, ইঁদুর ও মাকড়সা থাকবে আপনার ঘর থেকে দূরে।
 
গাছ রক্ষায়: পোকামাকড় গাছপালার ডাল পাতা নষ্ট করে দেয়। পোকামাকড়ের হাত থেকে গাছপালাকে রক্ষা করতে ব্যবহৃত চা পাতা ধুয়ে গাছের গোঁড়ায় দিয়ে রাখুন। পোকামাকড় দূরে থাকবে, আবার গাছের সার হিসাবেও কাজ করবে।

ব্রেকিংনিউজ/এমএইচ