ঝিনেইদহে তরুণীকে বিয়ের পর ধর্ষণের আসামির জামিন দিল আদালত

ঝিনাইদহে ধর্ষণের শিকার তরুণীর সঙ্গে বিয়েতে রাজি হওয়ায় নাজমুল হোসেন (২০) নামের এক আসামিকে জামিন দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আবু আহসান হাবিবের নির্দেশে এ বিয়ে সম্পন্ন হয়।

ঝিনেইদহে তরুণীকে বিয়ের পর ধর্ষণের আসামির জামিন দিল আদালত

আসামি নাজমুল হোসেন জেলা শহরের কাঞ্চননগর এলাকার জাহিদুল ইসলামের ছেলে। 

গত বছরের ১৫ জানুয়ারি নাজমুল ওই মাদ্রাসা ছাত্রীর বাড়ি যায়। বাড়িতে কেউ না থাকায় নাজমুল তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়েটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে নাজমুলকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এ ঘটনায় নির্যাতিতার মামা বাদী হয়ে ওইদিন নাজমুলকে আসামি করে সদর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে।

মামলা দায়েরের পর সেই মামলায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠায়। দীর্ঘ এক বছর কারাবাস করার পর দুই পরিবারের সম্মতিতে বিয়ের মাধ্যমে আসামি নাজমুলকে জামিন দেন আদালত। আসামিকে বিয়ের মাধ্যমে জামিন দিলেন জেলা দায়রা জজ আদালতের বিচারক আবু আহসান হাবিব।

আসামী পক্ষের আইনজীবী আমিনুল ইসলাম নুরুল বলেন, নাজমুল হোসেন ধর্ষণ মামলায় এক বছর এক মাস হাজতে ছিল। হাজতে থাকাকালীন জামিন আবেদন করেছিলাম। পরবর্তীতে দুই পক্ষের অভিভাবকদের সম্মতিতে তারা বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। সিদ্ধান্তের আলোকে আমরা আদালতে বেল আবেদন করি। জেলা ও দায়রা জজ মহোদয় উভয়পক্ষের অভিভাবকদের বক্তব্য শুনে বিয়ের আদেশ দেন। বৃহস্পতিবার স্থানীয় কাজীর মাধ্যমে তাদের বিয়ে দেওয়া হয়।