দৈহিক শক্তি বাড়ায় যে ৫ খাবার

ক্ষুধা লাগলে খেতে হবে, এটা যেন প্রকৃতির নিয়ম! তবে এত খাবারের মাঝে অনেক খাবার আছে যা মুখরোচক হলেও আমাদের শরীরের জন্য খুব বেশি উপকারী নয়। এছাড়া অনেক সময় আপনি হয়তো অফিসের কাজে বা যে কোন অবস্থায় ...

দৈহিক শক্তি বাড়ায় যে ৫ খাবার
ক্ষুধা লাগলে খেতে হবে, এটা যেন প্রকৃতির নিয়ম! তবে এত খাবারের মাঝে অনেক খাবার আছে যা মুখরোচক হলেও আমাদের শরীরের জন্য খুব বেশি উপকারী নয়। এছাড়া অনেক সময় আপনি হয়তো অফিসের কাজে বা যে কোন অবস্থায় ঠিক সময় মতো খাবারটা গ্রহন করতে পারেন না বা আপনার খাবারের মেন্যুতে অনেক বেশি ফাস্ট ফুড থেকে যায়। সেকারণে সম্প্রতি অধিকাংশ পুরুষই দৈহিক শক্তির অভাবে ভুগেন। সেক্ষেত্রে দৈহিক শক্তি বাড়াতে প্রাকৃতিকভাবেই ফাস্টফুডের থেকে দৈহিক শক্তি বর্ধক খাদ্যই অনেক বেশি কার্যকরী হিসেবে বিবেচিত হয়। তেমনি কয়েকটি খাবার হলো:

৥ কলা : কলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম দৈহিক শক্তি বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ানও। যা শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতেও সহায়ক। আর সর্বোপরি কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ শর্করা যা আপনার দেহের শক্তি বৃদ্ধি করে। ফলে ক্লান্তি আসবে না।

৥ রসুন : দৈহিক সমস্যা থাকলে এখনই নিয়মিত রসুন খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। অনেক প্রাচীনকাল থেকেই নারী পুরুষ উভয়েরই দৈহিক শক্তি বাড়াতে রসুনের পুষ্টিগুণের কার্যকারিতা সর্বজনস্বীকৃত। রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা দৈহিক ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়।

৥ ডিম : দৈহিক দুর্বলতা দূর করতে এক অসাধারণ খাবার ডিম। প্রতিদিন সকালে, না পারেন সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ১টি করে ডিম সিদ্ধ করে খান। এতে আপনার দুর্বলতার সমাধান হবে।

৥ দুধ : যেসব খাবারে বেশি পরিমাণ প্রাণিজ-ফ্যাট আছে এমন প্রাকৃতিক খাদ্য দৈহিক শক্তির উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চায়। কিন্তু আপনি যদি দৈহিক শক্তির হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সবগুলোকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

৥ মধু : দৈহিক দুর্বলতার সমাধানের মধুর গুণের কথা সবারই কম-বেশি জানা। তাই দৈহিক শক্তি বাড়াতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ১ গ্লাস গরম পানিতে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে পান করুন।


ব্রেকিংনিউজ/নিহে