দৌলতপুরে বিষাক্ত ট্যাবলেট দিয়ে ৫ লাখ টাকার মাছ নিধন

ভরা মৌসুমে পুকুর ভরা মাছ। দুর্বৃত্তের ছেড়ে দেয়া বিষাক্ত ট্যাবলেটে মরে গেছে সব। অন্তত ৫ লাখ টাকার বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। ক্ষতিগ্রস্ত খামারি এখন দিশেহারা। কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের এক মাছের খামারে ঘটেছে এমন ঘটনা।

দৌলতপুরে বিষাক্ত ট্যাবলেট দিয়ে ৫ লাখ টাকার মাছ নিধন
দৌলতপুরে বিষাক্ত ট্যাবলেট দিয়ে ৫ লাখ টাকার মাছ নিধন

তিনবছর ধরে লালন-পালন করে আসা পুকুর ভরা মাছের এখনই বিক্রির মৌসুম। ঠিক তখন হঠাৎ দুঃসংবাদ পেলেন মৎস খামারি গোলাম মোস্তফা। তিনি বলেন, 'নৈশ প্রহরীর কাছে খবর পেয়ে পুকুরে এসে দেখি মাছ মরে ভাসছে'। এসময় পুকুর পাড়ে মাছ মারার জন্য ব্যবহৃত এক ধরনের বিষাক্ত ট্যাবলেটও পড়ে থাকতে দেখেন তিনি।

পূর্ব কোন শত্রুতার আঁচ না পেলেও প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে ঘটানো এমন জঘন্য কাজের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চেয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

গোলাম মোস্তফার সন্তান মিঠু বলেন, অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতেই আমাদের পুকুরে মাছ নিধন করেছে কোন চক্রান্তকারী। পুলিশ প্রশাসন যেন বিষয়টি তদন্ত করে দোষী কে শাস্তির আওতায় নেয় এজন্য আমরা ইতোমধ্যেই আবেদন করেছি।

ব্যপক ভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন  মাছ চাষী গোলাম মোস্তফা, এমন তথ্য নিশ্চিত করে উপজেলা মৎস কর্মকর্তা খন্দকার শহিদুর রহমান বলেন, আগামীতে আমাদের যে কোন প্রকার প্রণোদনা বা সুবিধা দেয়ার ক্ষেত্রে আমরা এই ক্ষতিগ্রস্ত খামারিকে বিশেষ অগ্রাধিকার দেবো।

উল্লেখ্য যে, দৌলতপুরে মাছের পুকুর বা ফসলের জমিতে এমন শত্রুতা পূর্ণ আক্রমণ প্রায়ই ঘটছে। দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিলে অনেকাংশেই কমে আসবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।