পাকিস্তানে সংখ্যালঘু নির্যাতন, প্রতিবাদে ঢাকায় মানববন্ধন

পাকিস্তানের বেলুচ, গিলগিত ও সিন্ধুসহ বিভিন্ন প্রদেশে সেনাবাহিনী কর্তৃক ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর নৃশংস নির্যাতন-নিপীড়নসহ গণহত্যার প্রতিবাদে ঢাকায় পথসভা ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ...

পাকিস্তানে সংখ্যালঘু নির্যাতন, প্রতিবাদে ঢাকায় মানববন্ধন

পাকিস্তানের বেলুচ, গিলগিত ও সিন্ধুসহ বিভিন্ন প্রদেশে সেনাবাহিনী কর্তৃক ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর নৃশংস নির্যাতন-নিপীড়নসহ গণহত্যার প্রতিবাদে ঢাকায় পথসভা ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বাংলাদেশ সোস্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম (বিএসএএফ)।

শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার গুলশান-২ সড়ক চত্বরে পাকিস্তানে মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদে এ পথসভা ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। 

পথ সভায় বক্তরা বলেন, মানুষ হত্যা করা কখনই কোন সভ্যতার সূচক হতে পারে না। কোন ধর্মও মানুষ হত্যাকে সমর্থন দেয়নি। অত্যান্ত দুঃখজনক হলেও সত্য পাকিস্তান এখনো পূর্বের ন্যায় বর্ববরই রয়ে গেছে। পাকিস্তান নামক রাষ্ট্রে আজও সভ্যতার ছোঁয়াও লাগেনি। পাকিস্তান বিশ্ব শান্তি, সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্বের ক্ষেত্রেও বড় ধরনের বাধা। 

তারা আরও বলেন, পাকিস্তান অভিশপ্ত দেশ। লক্ষ লক্ষ মানুষকে তারা হত্যা করেছে। পাকিস্তানী সেনারা এখনও প্রতিনিয়ত বেলুচ, সিন্ধু ও গিলগিস্তান প্রদেশসহ বিভিন্ন প্রদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর নৃশংস নির্যাতন-নিপীড়ন ও গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের লীলাভূমিতে পরিণত হয়েছে পাকিস্তান। এছাড়াও জঙ্গি উৎপাদনের প্রজনন কেন্দ্রও রয়েছে দেশটিতে। 

বিএসএএফের প্রধান সমন্বয়ক মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী বলেন, বিদেশি সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা বাংলাদেশ সরকার ও সেনাবাহিনী নিয়ে ভিত্তিহীন বিভ্রান্তিকর মিথ্যা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। আল-জাজিরার ভিত্তিহীন সংবাদের পিছনে পাকিস্তানের পৃষ্ঠপোষকতা ও গভীর চক্রান্ত আছে বলে আমরা মনে করি। কেননা ইতোপূর্বে আল-জাজিরার সাথে পাকিস্তানের উগ্রবাদী জঙ্গীদের যে আত্মিক ও আদর্শিক সম্পর্ক আছে তা বিশ্ব জঙ্গী বিশেষজ্ঞদের মতামতে এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বহুবার প্রকাশ পেয়েছে। জঙ্গিবাদী সাম্প্রদায়িক আগ্রাসন ও আল-জাজিরার মত মিডিয়ার মিথ্যাচার থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে হলে আল-জাজিরার সম্প্রচার বন্ধ করতে হবে।

পথসভায় বক্তব্য রাখেন, ক্যান্টামেন্ট মুসলিম মর্ডান একাডেমীর সিনিয়র ধর্মীয় শিক্ষক মাওলানা ফজলে রব্বী মো. ফরহাদ, ওলামা লীগের নেতা ক্বারী মাওলানা আসাদুজ্জামান, বাংলাদেশ সোস্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরামের সমন্বয়ক শেখ জনি ইসলাম, সাংবাদিক মুজাহিদুল ইসলাম, মান্নান হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক মো. মাহফুজুল ইসলাম, আব্দুস সালাম সরকার, নাফি উদ্দিন উদয় ও শাফি উদ্দিন বিনয় প্রমুখ।