বাইডেনের অভিষেক ভাষণে চোখ সবার

যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬ তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ বুধবার শপথগ্রহণ করতে যাচ্ছেন ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেন। শপথ নেওয়ার পর প্রথমবারের মতো প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাষণ দেবেন ...

বাইডেনের অভিষেক ভাষণে চোখ সবার

যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬ তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ বুধবার শপথগ্রহণ করতে যাচ্ছেন ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেন। শপথ নেওয়ার পর প্রথমবারের মতো প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাষণ দেবেন তিনি। 

করোনাভাইরাসে বিপর্যয়কর পরিস্থিতি, মহামারীর ধাক্কায় নাজুক অর্থনীতি, ভেঙে পড়া পররাষ্ট্র নীতি, ক্ষমতা হস্তান্তর নিয়ে সাবেক বনে যাওয়া ডোনাল্ড ট্রাম্পের চূড়ান্ত অসহযোগিতা আর সহিংসতার আশঙ্কার শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতির মধ্য দিয়েই অভিষেক হচ্ছে জো বাইডেনের।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন ডি রুজভেল্টের পর সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের দায়িত্ব নিচ্ছেন জো বাইডেন। রুজভেল্ট মহামন্দার সময় দায়িত্ব নিলেও বাইডেন অর্থনৈতিক সংকটের পাশাপাশি পাচ্ছে মহামারি করোনাভাইরাস ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের ছড়ানো জাতিবিভেদ ও সহিংসতার বিষেও আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্র। 

সাধারণ ভাবে প্রেসিডেন্টের অভিষেকে আনন্দ-উল্লাসমুখর পরিবেশ থাকলেও এবারে একেবারে ভিন্ন পরিস্থিতিতে আমেরিকা। হাজার হাজার মানুষ যেখানে অভিষেক অনুষ্ঠান উদযাপন করতে ওয়াশিংটনে জড়ো হয় সেখানে ট্রাম্প সমর্থকদের ভয়াবহ হামলার দিকেই বেশি মনোযোগী প্রশাসন। তবে হামলার শঙ্কা নিয়েই শপথের মঞ্চে উঠতে যাচ্ছেন ডেমোক্র্যাট জো বাইডেন।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্টদের অভিষেকে দেয়া ভাষণের দিকে তাকিয়ে থাকে গোটা বিশ্ব। কারণ, এর মধ্য দিয়েই যুক্তরাষ্ট্রের ভাবি পররাষ্ট্রনীতি, অর্থনৈতিক পরিকল্পনা থেকে শুরু করে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। দীর্ঘ দিনের অভিজ্ঞতা থেকে বাইডেন এই বিষয়টি সম্পর্কে খুব ভালোভাবেই ওয়াকিবহাল।

বাইডেনের উপদেষ্টাদের বরাত দিয়ে সিএনএন’র ওই প্রতিবেদনে জানায়, অভিষেক বক্তব্যটি একটি চমক হয়ে সামনে আসুক এমনটি চান বাইডেন। আবার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কারণে ভাষণে এতবার পরিবর্তন আনতে হচ্ছে যে, আগে থেকে এই ভাষণ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। তবে একেবারে ধারণা পাওয়া যাচ্ছে না, এমন নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী, ২০ জানুয়ারি বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্টের অভিষেক হবে। সাধারণত স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১১টা (১৬:৩০ জিএমটি এবং বাংলাদেশ সময় বুধবার রাত সাড়ে ১০টায়) অনুষ্ঠান শুরু হয়।

এছাড়া, দিনের মধ্যভাগে বাইডেন ও হ্যারিস শপথ বাক্য পাঠ করবেন। দিনের শেষ ভাগে হোয়াইট হাউজে যাবেন বাইডেন। আগামী চার বছরের জন্য সেটাই তার বাড়ি হবে।