ভারত থেকে এলো ৫০ লাখ করোনা ভ্যাকসিন

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকা উদ্ভাবিত ৫০ লাখ টিকার (করোনা ভাইরাস) প্রথম চালান টঙ্গীতে বেক্সিমকো ফার্মার নিজস্ব ওয়ারহাউজে এসে পৌঁছেছে।

ভারত থেকে এলো  ৫০ লাখ করোনা ভ্যাকসিন
ভারত থেকে এলো ৫০ লাখ করোনা ভ্যাকসিন
ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকা উদ্ভাবিত ৫০ লাখ টিকার (করোনা ভাইরাস) প্রথম চালান টঙ্গীতে বেক্সিমকো ফার্মার নিজস্ব ওয়ারহাউজে এসে পৌঁছেছে।

সোমবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুর একটার দিকে পুলিশ প্রহরায় ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বেক্সিমকোর বিশেষায়িত ভ্যানে করে টিকার এ চালান ওয়ারহাউজে নেওয়া হয়।

বেক্সিমকো ফার্মাটিউক্যালস লিমিটেডের চিফ অপারেটিং অফিসার রাব্বুর রেজা জানান, বাংলাদেশে সেরাম ইনস্টিটিউটের এক্সক্লুসিভ ডিস্টিবিউটর বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের মাধ্যমে সোমবার সকাল ১১টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভারত থেকে করোনা ভাইরাসের ওই টিকার প্রথম চালান এসে পৌঁছে। সেখানে আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিশেষায়িত ভ্যানে করে টিকাগুলো পুলিশ প্রহরায় গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী চেরাগ আলী এলাকায় অবস্থিত বেক্সিমকো ফার্মার ওয়ারহাউজের উদ্দেশে নেয়া হয়। পরে দুপুর একটার দিকে টিকা বহনকারী ৯টি বিশেষায়িত ভ্যান থেকে টিকা ওয়ারহাউজে রাখা হয়।  

টঙ্গীর বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের কারখানায় ১৫ মিলিয়ন (ভ্যাকসিন) ভায়াল ধারণ ক্ষামতা বিশিষ্ট দুইটি ওয়্যার হাউস রয়েছে। ২ থেকে ৮ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় এ ভ্যাকসিন সংরক্ষণ করতে হয়। বিশেষায়িত এ ওয়্যার হাউজে নির্ধারিত তাপমাত্রাসহ বিশেষ পরিবেশ মেনটেইন করা হচ্ছে। শুধু ওয়্যার হাউসেই নয়, পরিবহনের সময় ভ্যানেও ওই পরিবেশ ও তাপমাত্রা বজায় রাখা হচ্ছে। এখানে ভ্যাকসিনের মান নিয়ন্ত্রণে রাখতে আমাদের সকল ব্যবস্থা রয়েছে।

চুক্তি অনুযায়ী ৩ কোটি ডোজ টিকার মধ্যে আজ ৫০লাখ ডোজ টিকা এসেছে। আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপ হচ্ছে বাংলাদেশ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের যে ল্যাবরোটরী আছে সেখানে রিলিজ সার্টিফিকেটের জন্য এ ভ্যাকসিনের কিছু স্যাম্পলসহ ডকুমেন্ট সাবমিট করতে হবে। আজকে কিংবা কালকে এসব আমরা জমা দেব। ল্যাবে জমা দেয়ার পর ওনারা তা রিলিজ করে দিলে ডিজি হ্যাল্থ অফিসের সরবরাহ করা তালিকা অনুযায়ী নির্দিষ্ট সংখ্যক ভ্যাকসিন ৬৪ জেলায় আমাদের ফ্রিজার ভ্যানে করে পৌঁছে দেব।