রাশিয়ার দাবি মানবদেহে বার্ড ফ্লুর প্রথম সংক্রমণের

এই প্রথম মানবদেহে বার্ড ফ্লু ভাইরাসের একটি প্রজাতির সংক্রমণ দেখা দিয়েছে বলে দাবি করেছে রাশিয়া। রুশ সংবাদমাধ্যমের দাবি, সে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের একটি পশুখামারে ৭ কর্মীর দেহে বার্ড ফ্লুর একটি প্রজাতির (এইচ৫এন৮) সংক্রমণ ধরা পড়েছে। যদিও রাশিয়ার এই দাবিকে এখনো মেনে নেয়নি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। তারা জানিয়েছে, মানবদেহে বার্ড ফ্লু সংক্রমণের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে তারা এই দাবি এখনো উড়িয়েও দেয়নি।

রাশিয়ার দাবি মানবদেহে বার্ড ফ্লুর প্রথম সংক্রমণের

শনিবার রুশ টেলিভিশনে সে দেশের উপভোক্তা এবং মানবাধিকার সংগঠনের প্রধান আনা পোপোভা জানিয়েছেন, আক্রান্ত ওই ৭ জনের থেকে বার্ড ফ্লুর প্রজাতিটির জিনের উপাদান সংগ্রহ করেছেন ভেক্টর ল্যাবরেটরির গবেষকেরা। তিনি বলেন, গত ডিসেম্বরেই ওই খামারে বার্ড ফ্লুর প্রকোপ দেখা দিয়েছিল। এর পর বেশ কিছু দিন আগে মানবদেহেও সংক্রমণ ঘটে। তার ফলাফল নিয়ে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়ার পরই এ খবর দেয়া হচ্ছে। তবে ওই কর্মীরা আক্রান্ত হলেও তাদের মধ্যে কোনো উপসর্গ দেখা দেয়নি বলে জানিয়েছেন পোপোভা।

খামার থেকেই তারা সংক্রমিত হয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে। পোপোভা বলেন, বার্ড ফ্লুতে সংক্রমণের যাবতীয় তথ্য ইতোমধ্যেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে জানানো হয়েছে। যদিও পোপোভার দাবি, ‘ওই ৭ জন ছাড়া আর কারো দেহে সংক্রমণের চিহ্ন ধরা পড়েনি।’

তবে এ বিষয়ে এখনই কোনো মন্তব্য করতে নারাজ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থার এক মুখপাত্রের ভাষায়, এ নিয়ে নিশ্চিত হওয়ার পরই বলা যেতে পারে এইচ৫এন৮ প্রজাতি মানবদেহে প্রথম বার সংক্রমণ ঘটিয়েছে কি না?

সম্প্রতি ভারতেও বার্ড ফ্লু বা আভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। গত কয়েক মাসে রাশিয়া ছাড়াও ইউরোপ, পূর্ব ও উত্তর আফ্রিকা এবং চীনসহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে বার্ড ফ্লুর এই প্রজাতির (এইচ৫এন৮) সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তবে সব ক্ষেত্রেই সংক্রমণ পশুখামার পর্যন্তই সীমাবদ্ধ ছিল। এখনো পর্যন্ত মানবদেহে বার্ড ফ্লুর সংক্রমণ ঘটেনি বলেই দাবি গবেষকদের। যদিও মানবদেহে বার্ড ফ্লুর অন্যান্য প্রজাতির (এইচ৫এন১, এইচ৭এন২ এবং এইচ৯এন২) সংক্রমণ ঘটতে পারে বলেও জানিয়েছেন তারা।

মানবদেহে বার্ড ফ্লুর সংক্রমণ ধরার পর এর প্রতিষেধক তৈরিতে জোর দিয়েছেন সাইবেরিয়ার ভেক্টর ইনস্টিটিউটের গবেষকরা। তারা জানিয়েছেন, এইচ৫এন৮-এর প্রতিষেধক তৈরির চেষ্টা চলছে। মানবদেহে পরীক্ষা-নিরীক্ষাও করা শুরু হবে।

বার্ড ফ্লু বা অ্যাভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা হচ্ছে ভাইরাসজনিত সংক্রমণ। এটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পাখিতে দেখা যায় কিন্তু মানুষ ও অন্য প্রাণীও সংক্রমিত হতে পারে। তবে বেশিরভাগ সংক্রমণই সীমাবদ্ধ থাকে পাখিতে।
এইচ৫এন১ হচ্ছে সবচেয়ে সাধারণ বার্ড ফ্লু। এটি পাখিদের জন্য অত্যন্ত ভয়ানক। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বরাত দিয়ে স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েবসাইট হেলথ লাইন ডট কম জানিয়েছে, ১৯৯৭ সালে প্রথম মানবদেহে এই ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায় এবং সংক্রমিতদে ৬০ শতাংশ মারা যায়। এই রোগের লক্ষণগুলো হচ্ছে- কাশি, ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্ট, জ্বর, মাথা ব্যাথা, পেশিতে দাগ হওয়া, নাক দিয়ে পানি পড়া, গলায় ব্যাথা।