শিকাগোতে বন্দুকধারীর হামলায় ৪ জন নিহত

শিকাগো শহরে কয়েক ঘন্টা ধরে এক বন্দুকধারী সন্ত্রাসীর হামলায় চারজন মারা গেছেন। পরে পুলিশের গুলিতে ওই বন্দুকধারীর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত আরো তিনজন। স্থানীয় সময় শনিবার বেলা ...

শিকাগোতে বন্দুকধারীর হামলায় ৪ জন নিহত
শিকাগো শহরে কয়েক ঘন্টা ধরে এক বন্দুকধারী সন্ত্রাসীর হামলায় চারজন মারা গেছেন। পরে পুলিশের গুলিতে ওই বন্দুকধারীর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত আরো তিনজন।

স্থানীয় সময় শনিবার বেলা দেড়টার দিকে শহরে একের পর এক হামলা চালায় ওই সন্ত্রাসী। শিকাগোর পুলিশ বিভাগ হামলাকারীর মানসিক অবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।

শিকাগো পুলিশ প্রধান ডেভিড ব্রাউন নিহত হামলাকারীকে জেসন নাইটেঙ্গল (৩২) হিসাবে চিহ্নিত করেছে। তবে কেন সে হামলা চালিয়েছে, সেই কারণ এখনও অজানা রয়েছে। ইতোমধ্যে হামলার ব্যাপারে তদন্ত শুরু করেছে শিকাগো পুলিশ।

সূত্রে জানা গেছে, আচমকাই শহরের একাধিক এলাকায় গুলি চালায়। বিভিন্ন বয়স, পেশার মানুষজনকে আক্রমণ করে।  প্রথমে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে হামলায় চালায় এক বন্দুকধারী। তার ছোড়া গুলিতে এক ছাত্রের মৃত্যু হয়। পুলিশ জানায়, পার্কিং লটে নিজের গাড়িতে বসেছিলেন ওই ছাত্র। তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় ওই বন্দুকধারী। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এরপর একটি অ্যাপার্টমেন্টে ঢুকে সেখানকার নিরাপত্তারক্ষীকে জখম করে এবং এক বৃদ্ধাকে লক্ষ করে গুলি ছুড়লে তাঁর ঘাড়ে গুলি লাগে। গুরুতর জখম অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। হাসপাতালে আনার পর নিরাপত্তারক্ষীরও মৃত্যু হয়। এর মাঝে একবার শিকাগো পুলিশ বিভাগের একটি গাড়িতে হামলা চালিয়েছিল সে। এরপর এক রেস্তোরাঁর কর্মীকে নিশানা করে গুলি ছোড়ে। পরে চুরি করা গাড়ি নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে সে। গাড়ি নিয়ে পৌঁছে যায় শিকাগো সীমান্তে।

তবে, একের পর এক হামলার খবরে আগে থেকেই সতর্ক অবস্থানে থাকে শিকাগো পুলিশ। শিকাগো সীমান্তে পার্কিং লটে পুলিশের সঙ্গে গুলি বিনিময়ে তার মৃত্যু। 

এর আগে, নাইটেঙ্গলকে ২০০৫ সালে বন্দুক ও মাদক লঙ্ঘন, অপরাধমূলক অপরাধ, চুরি, মারাত্মক অস্ত্রের সহিংস হামলা, বেপরোয়া আচরণ এবং গৃহকর্মী সহিংসতার অভিযোগে গ্রেফতার করেছিলো পুলিশ।

ব্রেকিংনিউজ/নিহে