শেরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিচয় মিলেছে

বগুড়ার শেরপুরে বাস ও পাথর বোঝাই ট্রাকের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ছয়জনের পরিচয় মিলেছে। এদের মধ্যে উভয়গাড়ির চালক ও স্বামী-স্ত্রী রয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে শিশুসহ আরও অন্তত ১৫ জন। রোবার (২১ ফেব্রুয়ারি) ভোর ৬টার দিকে উপজেলার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের পৌর শহরের কলেজ রোড নামক স্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- দুর্ঘটনা কবলিত বাস চালক শেরপুর পৌর শহরের গোসাইপাড়া এলাকার মনিন্দ্র নাথ সাহার ছেলে বাবলু সাহা ওরফে বাঘা (৫৫), একই বাসের হেলপার উপজেলার সীমাবাড়ী ইউনিয়নের ধনকুণ্ডা গ্রামের নজর আলীর ছেলে ইদ্রিস আলী (৪০), ট্রাক চালক খুলনা সদর উপজেলার আমজাদ হোসেনের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২১), বগুড়া জেলার সদর উপজেলার হাজরাদিঘী গ্রামের তছলিম উদ্দীনের ছেলে ইয়াসিন আলী (৬৫), তার স্ত্রী হোসনে আরা ফিরোজা (৬০) ও একই উপজেলার দক্ষিণ নাটাইপাড়া গ্রামের মিন্টু সেখের ছেলে আকতার উদ্দিন (৪৫)। এছাড়াও আহতদের মধ্যে গুরুতর ইয়াকুব আলী (৪২), ইসতিয়াক হোসেন (১৮), ইমতিয়াজ হোসেন (৩), মর্জিনা বেগম (৪০), ফিরোজ আলী (৩৫), ছালমা বেগম (৩০), নাদিয়া আক্তার (৩৫), মৌসুমী আক্তার (৩২), পারভীন খাতুন (২৬), লাভলী আক্তারকে (৩৫) বগুড়ার শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের সবার বাড়ি পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও বগুড়া জেলায়। বাকিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে যাওয়ায় তাদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বানিউল আলম বলেন, ‘বাসটি বেপরোয়া গতিতে ওভারটেক করতে গেলে বিপরীতগামী ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। দুর্ঘটনার পর কিছু সময়ের জন্য যান চলাচল বন্ধ থাকলেও এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান তিনি।’ আরএইচ/এএসএম

শেরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিচয় মিলেছে

বগুড়ার শেরপুরে বাস ও পাথর বোঝাই ট্রাকের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ছয়জনের পরিচয় মিলেছে। এদের মধ্যে উভয়গাড়ির চালক ও স্বামী-স্ত্রী রয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে শিশুসহ আরও অন্তত ১৫ জন।

রোবার (২১ ফেব্রুয়ারি) ভোর ৬টার দিকে উপজেলার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের পৌর শহরের কলেজ রোড নামক স্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

jagonews24

নিহতরা হলেন- দুর্ঘটনা কবলিত বাস চালক শেরপুর পৌর শহরের গোসাইপাড়া এলাকার মনিন্দ্র নাথ সাহার ছেলে বাবলু সাহা ওরফে বাঘা (৫৫), একই বাসের হেলপার উপজেলার সীমাবাড়ী ইউনিয়নের ধনকুণ্ডা গ্রামের নজর আলীর ছেলে ইদ্রিস আলী (৪০), ট্রাক চালক খুলনা সদর উপজেলার আমজাদ হোসেনের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২১), বগুড়া জেলার সদর উপজেলার হাজরাদিঘী গ্রামের তছলিম উদ্দীনের ছেলে ইয়াসিন আলী (৬৫), তার স্ত্রী হোসনে আরা ফিরোজা (৬০) ও একই উপজেলার দক্ষিণ নাটাইপাড়া গ্রামের মিন্টু সেখের ছেলে আকতার উদ্দিন (৪৫)।

jagonews24

এছাড়াও আহতদের মধ্যে গুরুতর ইয়াকুব আলী (৪২), ইসতিয়াক হোসেন (১৮), ইমতিয়াজ হোসেন (৩), মর্জিনা বেগম (৪০), ফিরোজ আলী (৩৫), ছালমা বেগম (৩০), নাদিয়া আক্তার (৩৫), মৌসুমী আক্তার (৩২), পারভীন খাতুন (২৬), লাভলী আক্তারকে (৩৫) বগুড়ার শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

jagonews24

এদের সবার বাড়ি পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও বগুড়া জেলায়। বাকিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে যাওয়ায় তাদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বানিউল আলম বলেন, ‘বাসটি বেপরোয়া গতিতে ওভারটেক করতে গেলে বিপরীতগামী ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। দুর্ঘটনার পর কিছু সময়ের জন্য যান চলাচল বন্ধ থাকলেও এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান তিনি।’

আরএইচ/এএসএম