সিলেটে ট্রিপল মার্ডার: কারাগারে যাচ্ছেন না খুনি আবাদ

সিলেটের শাহপরানে ট্রিপল মার্ডার মামলায় অভিযুক্ত কিশোর আবাদকে (১৭) কারাগারে না পাঠিয়ে নিরাপত্তা হেফাজতে দিয়েছেন আদালত। আদালতে ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে আবাদ তার বয়স ১৭ বছর বলায় বিচারক তাকে এ ...

সিলেটে ট্রিপল মার্ডার: কারাগারে যাচ্ছেন না খুনি আবাদ
সিলেটের শাহপরানে ট্রিপল মার্ডার মামলায় অভিযুক্ত কিশোর আবাদকে (১৭) কারাগারে না পাঠিয়ে নিরাপত্তা হেফাজতে দিয়েছেন আদালত।

আদালতে ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে আবাদ তার বয়স ১৭ বছর বলায় বিচারক তাকে এ আদেশ দেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) শিশু আদালতে আবাদকে হাজির করে পরবর্তী নির্দেশনার জন্য আবেদন করা হবে। আদালতের নির্দেশ পেলে শিশু আইন অনুযায়ী মামলাটি শিশু আদালতে স্থানান্তর ও তাকে সংশোধনাগারে পাঠানো হবে।

এর আগে সিলেটের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে আহবাব হোসেন আবাদ তার বয়স ১৭ বছর বলে বিচারকে জানায়। পরে শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাতে পুলিশের কাছ থেকে তাকে নিরাপত্তা হেফাজতে নেওয়া হয়। 

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার মাঝরাতে সিলেটের শাহপরান থানাধীন মীরমহল্লায় নিজ শয়নকক্ষ থেকে রুবিয়া বেগম (৩০), তার মেয়ে জান্নাতুল হোসেন মাহি (৯) ও ছেলে তাহসান হোসেন খানের (৭) রক্তমাখা লাশ উদ্ধার করা হয়। এসময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছোরাসহ রুবিয়ার সৎ ছেলে আহবাব হোসেন আবাদকে আটক করে পুলিশ।

পরে জিজ্ঞাসাবাদে আবাদ পুলিশকে জানায়, তাকে ভাত খেতে না দেওয়ায় সৎ মা ও ভাই-বোনকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে সে। ঘটনার পরদিন গত শুক্রবার রাতে নিহত রুবিয়ার ভাই আনোয়ার হোসেন বাদি হয়ে আবাদকে আসামি করে শাহপরান থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

পরদিন শনিবার দুপুরে মহানগর পুলিশ আহবাব হোসেন আবাদের নাম ও পরিচয় উল্লেখ করে গণমাধ্যমে একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠায়। এতে হত্যা মামলার আসামি হিসেবে কিশোরের বয়স ১৯ বছর উল্লেখ করা হয়। 

আবাদের বাবা আবদাল হোসেন খান জানান, তার ছেলের জন্ম ২০০৪ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি। সে হিসেবে বয়স ১৮ বছরের কম। আবাদও আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে তার বয়স ১৭ বছর বলে জানায়।

এদিকে আইন অনুযায়ী, কোনও অপরাধীর বয়স ১৮ বছরের নিচে হলে শিশু আইন ও শিশু সুরক্ষা নীতিমালা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/নিহে