ঝিনাইদহে প্রতিবেশিকে কুপিয়ে হত্যা

ঝিনাইদহে ঘরের চালে নুয়ে পড়া বাঁশ কাটার ঘটনায় আল ইসলাম (৩৫) নামে এক ব্যাক্তিকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার প্রতিবেশিদের বিরুদ্ধে। রোববার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে খুলনার একটি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মত্যু হয়।

 

নিহত আল ইসলাম কালীগঞ্জ বারোবাজার বাদুরগাছা গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় কালীগঞ্জ থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে নিহতের স্ত্রী নাজনীন নাহার শিলা বলেন, আমাদের ঘরের চালের উপর প্রতিবেশি সোহেল হোসেনের ঝাড়ের বাঁশ নুয়ে পড়ে ক্ষতি করছিল। তাদেরকে বাঁশগুলো কেটে নিতে বলার পরও কাটেনি। পরে গত ১৮ অক্টাবর চালে ঝুলে থাকা তিনটি বাঁশ কেটে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিবশী সোহেল ও তার পরিবারের লোকজন ধারালো অস্ত্র, লোহার রড ও লাঠিসোটা নিয়ে আমাদের বাড়িতে প্রবেশ করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এ সময় আমার স্বামী তাদের গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে সোহেল ও তার লোকজন দলবদ্ধ হয়ে আমার স্বামীর উপর হামলা করে। এ সময় স্বামীকে ঠেকাতে গিয়ে আমিও শ্লীলতাহানি শিকার হই। তারা আমার স্বামীক কুপিয়ে ও লাহার রড দিয়ে পিটিয়ে মুমুর্ষ অবস্থায় ফেলে রেখে যায়।

 

পরে আহত অবস্থায় প্রথমে কালীগঞ্জ উপজলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোর আড়াইশ বেডে ভর্তি করা হয়। সেখানেও ভর্তির পর তার অবস্থা সংকটাপন হলে তাকে দ্রুত খুলনার একটি হাসপাতালে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখান চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার দুপুরে তার মত্যু হয়।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান, ঘরের চালের উপর নুয়ে পড়া বাঁশ কাটায় আল ইসলাম (৩৫) নামে একজনকে কুপিয়ে জখম করে তার প্রতিবেশিরা। পরে আজ রোববার (২৪ অক্টোবর) খুলনার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্য হয়। এ ঘটনায় গত শুক্রবার থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামীরা পলাতক থাকায় মোবাইল ট্রাকিং এর মাধ্যমে তাদের গ্ররেফতারের চেষ্ট করা হচ্ছে।