প্রেমিকের সাথে ফোনে কথা বলতে বলতে প্রেমিকার আত্মহত্যা!

যশোরের মণিরামপুরে তমা বিশ্বাস (১৮) নামে এক কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১২ নভেম্বর) সকালে মামা বাড়িতে নিজ ঘরের ফ্যানের সাথে ওড়না জড়িয়ে গলায় ফাঁস দেয় তমা। তিনি রাজগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী। তমা খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার মঠবাড়িয়া গ্রামের সুভাষ বিশ্বাসের মেয়ে। পাঁচ বছর বয়স থেকে তিনি মণিরামপুরের হানুয়ার গ্রামে মামা উত্তম বিশ্বাসের বাড়ি থাকতেন।

 

গ্রামবাসী ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মণিরামপুর উপজেলার মশ্মিমনগর গ্রামের হাজরাকাটি গ্রামের সোহেল নামে এক যুবকের সাথে তমার প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। তার সাথে কথা বলতে বলতে তমা আত্মহত্যা করেছে বলে স্বজনরা জানিয়েছে। সোহেল যশোর শহরের একটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

 

তমার নানা বিকাশ বিশ্বাস বলেন, তমা আমার নাতনী। গত ৪/৫ দিন ধরে কার সাথে যেন তমা মোবাইলে বারবার কথা বলেছে। মোবাইলে তাদের দু’জনের মাঝে ঝগড়াও হয়েছে। কিন্তু তমা ছেলেটির বিষয়ে আমাদের কিছু জানায়নি। শুক্রবার সকালে ওই ছেলের সাথে তমার ফের কথা হয়।

 

বিকাশ বিশ্বাস বলেন, এদিন সকাল পৌনে ৮টার দিকে আমার মোবাইলে একটা কল আসে। আমি ফোন ধরলে ওপাশ থেকে পুরুষ কণ্ঠে একজন বলেন দ্রুত তমার ঘরে যান। দেখেন ও কি করছে। আমি লোকটার পরিচয় জানতে চাইলে তিনি নাম বলেননি। তারপর আমি দৌঁড়ে গিয়ে তমার ঘরের দরজা ভেঙে তাকে ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাই। নামিয়ে আনার পর তমাকে মৃত দেখতে পাই।

 

এ ব্যাপারে মণিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি (সার্বিক) নূর-ই-আলম সিদ্দিকী বলেন, এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।