চন্দ্রমহল ইকোপার্ক থেকে বন্যপ্রানী ও হরিণের চামড়া উদ্ধার :নগদ অর্থ দন্ড

মোংলা- খুলনা মহাসড়কের পাশে  চন্দ্রমহল ইকোপার্কে অভিযান চালিয়ে বন্যপ্রানী ও অবৈধ হরিণের চামড়া উদ্ধার করেছে র‌্যাব। সোমবার (১৫ নভেম্বর) সকালে র‌্যাব-৬ ও বন্যপ্রানী সংরক্ষন অধিদপ্তর  মহাসড়কের পাশে  সোনাতুনিয়া এলাকায় চন্দ্রমহল ইকোপার্কে এই অভিযান পরিচালনা করে। এ ঘটনায় চন্দ্রমহল কতৃপক্ষকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নুর-ই-আলম সিদ্দিকী।

 

জানা গেছে, গোপন সংবাদের এদিন অবৈধ ভাবে মজুদ করে রাখা হরিণের চামড়া ০৬টি, ভাল্লুকের চামড়া ০১টি, কুমির ০১টি, ক্যাঙ্গারুর চামড়া ০১টি, তিমির কংকাল ০১টি, অষ্টেলিয়ান ঘু ঘু ০৫টি, হরিণের শিং ০৬টি, উট পাখি ০৬টি, ময়ুর ০১টি, মাছমুড়াল পাখি ০২টি, বক ০৭টি, বানর ০৫টি ও কচ্ছপ ০২টি জব্দ করেন।

 

এ সময় উপরোক্ত চামড়া ও বন্যপ্রাণীর কোন বৈধ কাগজপত্র না থাকার কারণে বন্যপ্রাণী সংরক্ষন আইন ২০১২ এর ৩৭(২) ৪০. ৩৪(খ). ২৪ এর অপরাধে তাদেরকে ৫০হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের কারাদন্ড প্রদান করা হয়। কিন্তু নগত ৫০হাজার টাকা প্রদান করায় পার্কের ম্যানেজার মোঃ মহব্বর আলী চাকলাদার-কে ছেড়ে দেওয়া হয়।

 

র‌্যাব ৬ এর পুলিশ সুপার মাহফুজুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ সরকারের ডেল্টা প্লান অনুযায়ী র‌্যাব ফোর্সেস জাতীয় ইস্যুকে প্রটেস্ট করার জন্য বদ্ধ পরিকর। সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে বেআইনিভাবে বন্যপ্রানী রাখার কারনে এখানে ৪৩ টি প্রাণী আমরা জব্দ করেছি। বন্যপ্রানীকে বেআইনিভাবে আটকে রাখলে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে র‌্যাব একবিন্দু পিছপা হবেনা। এখানে পাওয়া কুমির ও অন্যান্য বন্যপ্রানীকে বন্যপ্রানী সংরক্ষন অধিদপ্তর এর মাধ্যমে সুন্দরবনে অবমুক্ত করা হবে। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বন্যপ্রাণী ব্যাবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ খুলনা এর পরিচালক রাজু আহম্মেদ ও কর্মকর্তা তন্ময় আচার্য সহ র‌্যাব-৬ এর উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ও সদস্যবৃন্দ।