উজিরপুরের আওয়ামী লীগ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিলের রায় হাইকোর্টেও বহাল

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার গুঠিয়া মডেল ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুস ছত্তার মোল্লার মনোনয়নপত্র বাতিলের নির্বাচন কমিশনের সিন্ধান্ত হাইকোর্টেও বহাল রয়েছে। ফলে এ ইউনিয়নে নৌকা প্রতিক ছাড়াই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের মাঝে চরম হতাশার সৃষ্টি হয়।

 

জানা গেছে,১৬ নভেম্বর মঙ্গলবার বেলা ১১টায় হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মমিনুর রহমান ও মো. খন্দকার দেলোয়ারুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত যৌথ বেঞ্চে আপিল শুনানীর সময় বানারীপাড়ার গৃহবধু জুলেখা হত্যা ও ডাকাতি মামলার নথি তলব করা হয়। পরে দুপুর ১টায় দ্বিতীয় দফা শুনানীকালে গৃহবধু জুলেখা হত্যা ও ডাকাতি মামলার নথি পর্যালোচনা করে বিচাপতিদ্বয় দেখতে পান যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত আসামী আবদুস ছত্তার মোল্লা  হাইকোর্টে আপিল করে এ  মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জামিন নেন। তবে তিনি হাইকোর্টের এ জামিনের কপিতে ঘষামাজা করে মামলা স্থগিতসহ স্থায়ী জামিন পেয়েছেন মর্মে কাগজপত্র দাখিল করে উজিরপুরের গুঠিয়া মডেল ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন।

 

তার এ  জালিয়াতি ও প্রতারনার বিষয়টি বিচাপতিদ্বয়ের কাছে প্রমানিত হলে তার পক্ষের আইনজীবীরা নির্বাচনে প্রার্থীতা ফিরে পাওয়ার বিষয়ে আপিল মামলা আর না চালানোর কথা বলেন। এছাড়া জালিয়াতির বিষয়টি প্রমানিত হওয়ায় হাইকোর্ট তার আপিল গ্রহণ না করায় নৌকার মনোনীত ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুস ছত্তার মোল্লার মনোনয়নপত্র বাতিলের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের রায় বহাল থাকে।

 

প্রসঙ্গত বরিশাল জেলা জ্যেষ্ঠ নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুল আলম গত ১০ নভেম্বর বিকালে বরিশাল আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ে প্রতিদ্বন্ধী স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির উদ্দিনের আবেদনের শুনানি শেষে  আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুস ছত্তার মোল্লার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন। ফলে প্রার্থীতা ফিরে পেতে আবদুস ছত্তার মোল্লা  উচ্চাদালতে (হাইকোর্ট)  আপিল করেন। উল্লেখ্য,আবদুস ছত্তার মোল্লা উজিরপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী বানারীপাড়া উপজেলার সলিয়াবাকপুর ইউনিয়নের মাদারকাঠি এলাকার জুলেখা নামের এক নারীকে হত্যা ও ডাকাতি মামলার যাবজ্জীবন সাজা প্রাপ্ত আসামী।

 

হত্যাকান্ডের শিকার জুলেখা গুঠিয়া বন্দরের ওষুধ ব্যবসায়ী ও গ্রাম ডাক্তার আ.হালিমের স্ত্রী। এ হত্যা মামলায় আবদুস ছত্তার মোল্লা ২ বছরেরও অধীক সময় কারাবন্দি ছিলেন। উচ্চআদালতে আপিলের প্রেক্ষিতে তিনি জামিনে রয়েছেন। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী হওয়ায় আইনীভাবে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে পারবেনা আবদুস ছত্তার মোল্লা এমন দাবী করে আবেদন করেন প্রতিদ্বন্ধি স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মো: নাসির উদ্দিন। ফলে নির্বাচন কমিশন তার প্রার্থীতা বাতিল করেন। যা হাইকোর্টও বহাল থাকে। এর ফলে এ ইউনিয়নে নৌকা প্রতিক ছাড়াই আগামী ২৮ নভেম্বর  নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।