সার নিয়ে বানারীপাড়ার সন্ধ্যা নদীতে বাল্কহেড ডুবি

বরিশালের বানারীপাড়ায় সন্ধ্যা নদীতে তলা ফেটে ৬ হাজার ৪শ’ বস্তা সার নিয়ে আব্দুর রহমান নামের একটি বাল্কহেড (পণ্যবাহী নৌযান) ডুবির ঘটনা ঘটেছে। ডুবে যাওয়া বাল্কহেডের চালকসহ ৩ জন শ্রমিক নদী সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হলেও রক্ষা করা সম্ভব হয়নি বাল্কহেড ও সার।

 

সোমবার (২২ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলার সলিয়াবাকপুর ইউনিয়নের খোদাবখ্সা এলাকা সংলগ্ন সন্ধ্যা নদীতে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এ প্রসঙ্গে বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রিপন কুমার সাহা জানান, যদিও সরকারি লেভেলযুক্ত কোন বস্তা আমরা এখনো দেখিনি। ফলে নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। তবে ধারণা করছি নৌযানটিতে সরকারি সার ছিল।

 

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে বানারীপাড়া থানার ওসি মো. হেলাল উদ্দিন জানান, বেলা ১১টার দিকে আমরা খবর পাই সবুজ রঙ করা একটি বাল্কহেড ধীরে ধীরে নদীতে ডুবে যাচ্ছে। বেলা ৪টার দিকে নৌযানটি পুরোপুরি ডুবে যায়। তবে নৌযানের চালক ও সাথে থাকা দুইজন শ্রমিক নদী সাতরে তীরে উঠে আসেন। তিনি আরও জানান, বাল্কহেডটিতে ৫০ কেজি ওজনের ৬ হাজার ৪শ’ বস্তা সার ছিল।

 

যশোর জেলার নোয়াপাড়া অভয়নগর থেকে বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার শিকারপুর গুদামে সারগুলো নেওয়া হচ্ছিল। বাল্কহেড মালিকের বাড়ি বাগেরহাট জেলায়। সন্ধ্যায় মালিকপক্ষ থানায় এসেছেন। তারা জানিয়েছেন, বাল্কহেডটিতে থাকা সার সরকারি।

 

এদিকে বাল্কহেডটি যেখানে ডুবে আছে সেখানে একটি বাঁশ পুতে দেয়া হয়েছে, যেন অন্য কোন নৌযান দুর্ঘটনার শিকার না হয়। উজিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: তৌহিদ জানান, শিকারপুর গুদামে কোন সার আসছিল এমন কোন তথ্য তার কাছে নেই। এমনকি বাল্কহেড ডুবিতে সরকারি সার ডুবে গেছে তাও জানা নেই। উপজেলা গুদামে সাধারণত এত বেশি বস্তা সার বরাদ্দ দেওয়া হয় না বলেও জানান তিনি।