আলমডাঙ্গায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিক ৫ ও স্বতন্ত্র ৮ চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী

আলমডাঙ্গার ১৩ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৫টিতে আওয়ামীলীগ ও ৮টিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ৩য় ধাপের সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে হারিয়ে তারা  বিজয়মাল্য ছিনিয়ে নিয়েছেন।

 

নির্বাচনে কুমারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবু সাঈদ পিন্টু  ৪৬১৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতিকের সেলিম রেজা তপন ৪২৬৪ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, আনারস প্রতীকে মোজাম্মেল হক পেয়েছেন ১৯৬১ ভোট ও মোটরসাইকেল প্রতীকে বিল্লাল হোসেন পেয়েছেন ৯৯৪ ভোট।

 

ডাউকী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের তরিকুল ইসলাম ৫৫৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোড়া প্রতিকের নাজমুল হুসাইন ৩৪২২ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, মোটরসাইকেল প্রতীকের শফিউল আলম পেয়েছেন ২৪১৯ ভোট ও আনারস প্রতীকে কাউসার আহমেদ পেয়েছেন ৫৯১ ভোট, হাতপাখা প্রতীকে আব্দুল মজিদ পেয়েছেন ৭৫ ভোট ও চশমা প্রতীকে সোহানুর রহমান পেয়েছেন ৫৪ ভোট।

 

জামজামি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের নজরুল ইসলাম ৬৮০৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতিকের জয়নাল আবেদীন চৌধুরী বাবলু ৫২০০ ভোট পেয়েছেন।

 

খাদিমপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের মোজাহেদুর রহমান জোয়ার্দ্দার লোটাস ৮০৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতিকে আব্দুল হালিম মন্ডল ৩৪৯১ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, হাতপাখা প্রতীকে মিজানুর রহমান বিশ্বাস পেয়েছেন ১২৫৯ ভোট।

 

গাংনী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের মুন্সি এমদাদুল হক ৫৪৬৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোড়া প্রতিকের ইফতেখার রাসুল ৩৫৯৯ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, চশমা প্রতীকে আজহারুল ইসলাম পেয়েছেন ৩০১৩ ভোট, মোটরসাইকেল প্রতীকে বজলুর রহমান পেয়েছেন ২৮০৫ ভোট, হাতপাখা প্রতীকে নাজিম উদ্দীন পেয়েছেন ৩১৯ ভোট, আনারস প্রতীকে সাইফুল ইসলাম মামুন পেয়েছেন ২৪ ভোট।

 

তাছাড়া,  ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী সোহানুর রহমান সোহান ৪৩৬৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতিকের নাহিদ হাসনাত ৪১৭৪ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, মোটর সাইকেল প্রতীকে সানোয়ার হোসেন লাড্ডু পেয়েছেন ৩৪৮৯ ভোট, চশমা প্রতীকে মনিরুদ্দীন পেয়েছেন ২৯৮০, আনারস প্রতীকে কাউসার আহমেদ বাবলু পেয়েছেন ১৯৫২ ভোট ও হাতপাখা প্রতীকে বিল্লাল হোসেন পেয়েছেন ৭৪ ভোট।

 

হারদী ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে সর্বোচ্চ ৬৪৭৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আশিকুজ্জামান ওল্টু, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী চশমা প্রতিকে শাহজাহান আলী ৬৪০০ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, নৌকা প্রতীকে নূরুল ইসলাম পেয়েছেন ৪৮৫৪ ভোট ও হাতপাখা প্রতীকে আমিনুল হক পেয়েছেন ৪২৮ ভোট।

 

বাড়াদি ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে সর্বোচ্চ ৩৮৫৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন তোবারক হোসেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী চশমা প্রতিকে উজ্জ্বল হোসেন ৩৬৬৮ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, নৌকা প্রতীকে আশাবুল হক পেয়েছেন ৩০৫২ ভোট, আনারস প্রতীকে মাসুদ পারভেজ পেয়েছেন ১৬৯৪ ও ঘোড়া প্রতীকে আশিকুর রহমান পেয়েছেন ৫৭০ ভোট।

 

চিৎলা ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে সর্বোচ্চ ৬১০৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন হাসানুজ্জামান সরোয়ার, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতিকে রবিউল ইসলাম ৪২৫৪ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, মোটরসাইকেল প্রতীকে আব্দুস সালাম বিপ্লব পেয়েছেন ২৫৬৯ ভোট, নৌকা প্রতীকে আব্দুল বাতেন পেয়েছেন ৮২৭ ভোট, অটোরিক্সা প্রতীকে উজির আলী পেয়েছেন ৪২ ভোট ও হাতপাখা প্রতীকে ইমদাদুল হক পেয়েছেন ৬৬৪ ভোট।

 

জেহালা ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে প্রতীকে সর্বোচ্চ ৭০৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন শিলন আলী, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতিকে হাসানুজ্জামান হাসান ৬০২৩ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, হাতপাখা প্রতীকে ইদ্রীস আলী পেয়েছেন ৬৯০ ভোট ও আনারস প্রতীকে মশিউর রহমান পেয়েছেন ৩৬৩ ভোট।

 

কালিদাসপুর ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে সর্বোচ্চ ৩৪৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আশাদুল হক মিকা, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোটরসাইকেল প্রতিকে আসাদুল হক ২৯৯৪ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, নৌকা প্রতীকে জয়নাল আবেদীন পেয়েছেন ২৩২৩ ভোট, আনারস প্রতীকে আব্দুল্লাহ আল হুসাইন দীপক ২১৯৩ ভোট, অটোরিক্সা প্রতীকে এরশাদ আলী পেয়েছেন ১৯৮৮ ভোট, টেবিল ফ্যান প্রতীকে  কে এম রাসেল পারভেজ ১৪১৫ ও ঘোড়া প্রতীকে আহসান উল্লাহ পেয়েছেন ৬৮০ ভোট।

 

বেলগাছি ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে সর্বোচ্চ ৩৪৮৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন মাহমুদুল হাসান চঞ্চল , তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোটরসাইকেল প্রতিকে আমিরুল ইসলাম মন্টু ৩০৪৮ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, ঘোড়া প্রতীকে গোলাম সরোয়ার শামিম পেয়েছেন ৩০৪২ ভোট ও নৌকা প্রতীকে সমীর কুমার দে পেয়েছেন ১০২ ভোট।

 

খাসকররা ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে সর্বোচ্চ ৭৯৭৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন তাফসির আহমেদ লাল, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতিকে মোস্তাফিজুর রহমান রুন্নু ৬৭২১ ভোট পেয়েছেন। তাছাড়া, হাতপাখা প্রতীকে আব্বাস উদ্দীন পেয়েছেন ৪১৩ ভোট।