বেনাপোল এক্সপ্রেস কাল থেকে চলবে

করোনাভাইরাস সংক্রমণ কমে আসায় নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে আবার ২ ডিসেম্বর থেকে রেলপথে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে যশোর বেনাপোল রুটে যোগাযোগ রক্ষাকারী একমাত্র ট্রেন বেনাপোল এক্সপ্রেস চালু হতে যাচ্ছে। করোনা মহামারির কারণে এ রুটে গত ৫ এপ্রিল থেকে বেনাপোল এক্সপ্রেস চলাচল বন্ধ করা হয়।

 

ভারত-বাংলাদেশ ল্যান্ড পোর্ট ইমপোর্ট-এক্সপোর্ট কমিটির চেয়ারমান মতিয়ার রহমান বলেন, বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন ঢাকাসহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ৫ থেকে ৬ হাজার পাসপোর্টধারী যাত্রী ভারতে যাতায়াত করে থাকেন। করোনাকালীন পরিস্থিতির কারণে দেশের সব ট্রেন বন্ধ হলে বেনাপোল-ঢাকাগামী আন্তঃনগর এ ট্রেনটি সরকার বন্ধ করে দেয়।

 

তিনি আর জানান, তবে কিছু দিন আগে সরকার সব ধরনের যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও চালু হয়নি ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’। ফলে কষ্ট এবং দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছিল ভারত যাতায়াতকারী অসুস্থ পাসপোর্ট যাত্রীদের। এতে ব্যবসায়ীসহ সর্বস্তরের থেকে মানুষ বেনাপোল এক্সপ্রেস চালুর দাবি তুলেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ২ ডিসেম্বর থেকে আবার চালু হচ্ছে জেনে আমরা সবাই খুশি।

 

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ অ্যাসেসিয়েশনের সেক্রেটারি সাজেদুর রহমান জানান, সড়কপথ দশা ও দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে ফেরিঘাটে যানজটের কারণে নানা ধরনের হয়রানির শিকার হতে হয় যাত্রীদের। সাধারণ সময়ে দিনে ১০ হাজার পর্যন্ত যাত্রী বেনাপোল বন্দর দিয়ে যাতায়াত করে থাকেন।

তবে বর্তমানে করোনার কারণে প্রতিদিন যাত্রীর পরিমান দেড় হাজারের কাছাকাছি। এসব যাত্রীদের ৯৫ শতাংশ ভারতে যাচ্ছেন চিকিৎসা সেবা নিতে। ট্রেন না থাকায় এসব যাত্রীদের বাড়িতে ফেরার জন্য সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। দেরিতে হলেও ট্রেনটি আবারো চালু হচ্ছে বলে জানান তিনি।

 

জানা যায়, বেনাপোল থেকে ঢাকায় যেতে পরিবহনে সময় লাগে ১২-১৪ ঘণ্টা। সড়কে যানজট বা আবহাওয়া খারাপ হলে অনেক সময় দ্বিগুণ সময় লেগে যায়। এক্ষেত্রে ট্রেনে নির্বিঘ্নে মাত্র সাড়ে সাত ঘণ্টায় বেনাপোল থেকে ঢাকায় পৌঁছানো যায়।

 

সপ্তাহে একদিন বুধবার বিরতি দিয়ে প্রতিদিন দুপুর ১টায় বেনাপোল থেকে ছেড়ে যায় ঢাকায় এবং রাত সাড়ে ১০টায় কমলাপুর থেকে ছেড়ে আসে বেনাপোল একপ্রেস। বেনাপোল থেকে ঢাকা যাত্রীপ্রতি এসিতে ভাড়া ১১১৬ টাকা, নন-এসিতে ৪৮৫। ঢাকা থেকে এসি স্লিপার ভাড়া ১৭৮১ টাকা, নন-এসিতে ৪৮৫ টাকা।

 

বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার সাইদুর রহমান জানান, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ রোধে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে ২ ডিসেম্বর থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আবারো বেনাপোল এক্সপ্রেস চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল বিভাগ।