শৈলকুপায় স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার,পরিবারের দাবি হত্যা

লাকী খাতুনের মরদেহ

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় আম গাছের সঙ্গে ঝুলে থাকা দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ রোববার সকালে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

 

ঘটনাটি উপজেলার হাকিমপুর ইউনিয়নের আজাদনগর গ্রামে। মৃত স্কুলছাত্রী ওই গ্রামের শুকুর আলী মন্ডলের মেয়ে লাকী খাতুন (১৪)। সে বিপ্রবগদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। পরিবারের অভিযোগ তাকে হত্যা করে মরদেহ গাছের সাথে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এই রহস্যজনক মৃত্যুকে ঘিরে এলাকায় নানা জল্পনা-কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে।

 

প্রতিবেশী ওহিদুল ইসলাম বলেন, ‘রোববার সকাল ৬টার দিকে মাঠে পেঁয়াজ বীজের জমি দেখতে যায় এরপর দেখি আমার জমির আমগাছের সাথে কি যেন ঝুলছে। কাছে গিয়ে দেখি মরদেহ। এরপর তাদের পরিবারের কাছে সংবাদ দিই।’

 

লাকির মা ছালেহা খাতুন বলেন, ‘আমার মেয়ের সাথে একই গ্রামের সদু জোয়ার্দ্দারের ছেলে মারুফ জোয়ার্দ্দারের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। রাত ৩টার দিকে মেয়েকে ঘরে না পেয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করি। সকাল ৬টার দিকে ওহিদুল ইসলাম এসে খবর দেয় তোমার মেয়ের মরদেহ গাছের সাথে ঝুলছে। এরপর সেখানে গিয়ে আমার মেয়ের মরদেহ দেখতে পাই। তবে আমার বিশ্বাস আমার মেয়ের হত্যার পিছনে মারুফ রয়েছে।’

 

এদিকে মারুফ জোয়ার্দ্দার বলেন, ‘মেয়েটির সাথে আমার চাচা ভাতিজির সম্পর্ক ছিল। ওদের বাড়িতে যাতায়াতের সুবাদে জানাশোনা ছিল। তবে এই মৃত্যুর বিষয়ে আমি কিছু জানি না।’

 

শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

মারুফ জোয়ার্দ্দার জানান, মেয়েটির সঙ্গে আমার চাচা-ভাতিজির সম্পর্ক ছিল। ওদের বাড়িতে যাতায়াতের সুবাদে জানাশোনা ছিল। তবে এই মৃত্যু বিষয়ে আমি কিছু জানি না।