গাংনীর শিশুধর্ষণকারী লাল্টু দর্শনায় গ্রেফতার

মেহেরপুরের গাংনীতে শিশু ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি মোখলেছুর রহমান লাল্টুকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ভারতে পালিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে চুয়াডাঙ্গার দর্শনা থানার সীমন্তবর্তী বড়বলদিয়া গ্রামে অবস্থানকালে রোববার মধ্যরাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গতকাল সোমবার দুপুরে র‌্যাব-৬ ঝিনাইদহ ক্যাম্পের কোম্পানি কামান্ডার শরিফফুল আহসান প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন। গ্রেফতারকৃত মোখলেছুর রহমান লাল্টু (৪০) মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটি বাঙালপাড়ার মৃত সাইনুদ্দিনের ছেলে।

 

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে, মেহেরপুর গাংনীর সাহারবাটি বাঙ্গালপাড়ার মোখলেছুর রহমান লাল্টুর মেয়ের সাথে খেলাধুলা করতো নিযাতিতা শিশুকন্যা। অন্যান্য দিনের মতো ঘটনার দিন গত ১৭ অক্টোবর বিকেলে অভিযুক্ত লাল্টুর বাড়িতে যায় সে। ওইদিন মেয়ে বাড়িতে না থাকায় অভিযুক্ত লাল্টু ওই শিশুকন্যাকে কলা ও চকলেট খাওয়ানোর কথা বলে নিজের ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে ওই শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে মোখলেছুর রহমান লাল্টু।

 

এ সময় শিশুকন্যা চিৎকার ও কান্নাকাটি করলেও বাড়িতে কেউ না থাকায় বিষয়টি কেউ জানতেও পারেনি। পরে বাড়িতে গিয়ে ঘটনাটি মায়ের কাছে বলে ওই শিশু। এ ঘটনায় শিশুকন্যার মা বাদী হয়ে অভিযুক্ত মোখলেছুর রহমান লাল্টুর বিরুদ্ধে গাংনী থানায় মামলা দায়ের করেন।

 

র‌্যাব আরও জানায়, গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে র‌্যাব জানতে পারে যে ওই মামলার পলাতক আসামি মোখলেছুর রহমান লাল্টু ভারতে পালিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ভারতে পালানোর উদ্দেশ্যে চুয়াডাঙ্গার দর্শনা থানাধীন সীমান্তবর্তী বড়বলদিয়া গ্রামে অবস্থান করছে। এ তথ্যের ভিত্তিতে গত রোববার মধ্যরাতে র‌্যাব-৬ ঝিনাইদহ ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল বড়বলদিয়া গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় গ্রামের ভারত সীমান্ত এলাকা থেকে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণকারী মোখলেছুর রহমান লাল্টুকে গ্রেফতার করা হয়। গ্র্রেফতারকৃত লাল্টুকে গাংনী থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।