দামুড়হুদা সীমান্তে ৪কেজি রুপা, ভারতীয় রুপি ও মাদক উদ্ধারসহ ১জনকে আটক

চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবি ব্যাটালিয়ন দামুড়হুদার বিভিন্ন সীমান্তে চোরাচালান ও মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান ভারতীয় চান্দী রুপা,ভারতীয় রুপি, মদ,ফেন্সিডিল, গাঁজা,ও ভারতীয় সিগারেট উদ্ধার করেছে। এসময় মোঃ রিংকু (৩০) নামে এক চোরাকারবারী কে আটক করা হয়েছে।আটককৃত রিংকু চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার হাতিকাটা গ্রামের আব্দুল বারীর ছেলে। উদ্ধারকৃত এসব মালামালের আনুমানিক মূল্য ৩৮লক্ষ ৫২হাজার টাকা।

 

গত এক সপ্তাহে এসব মালামাল উদ্ধার করা হয়। এছাড়া একই সপ্তাহে ২৩টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করা হয়েছে। সব মিলিয়ে এক সপ্তাতে ১ কোটি ৮২লক্ষ ৫২ হাজার টাকার মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে।

 

চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবির পরিচালক মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান, পিএসসি আজ শনিবার দুপুরে এক প্রেসবিজ্ঞতিতে জানান, গত ৫ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখ হতে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা, সুলতানপুর, মুন্সিপুর, ফুলবাড়ী ও বড়বলদিয়া বিওপির সীমান্ত এলাকায় চোরাচালান ও মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়।এসময় ৪ কেজি (৩৪২.৯) ভরি ভারতীয় চান্দী রুপা, ৯৫০০০ হাজার ভারতীয় রুপী এবং বাংলাদেশী নগদ-২হাজার ৫০০ টাকা, ২৬৭ বোতল ফেন্সিডিল, ৯৮ বোতল মদ, ২ কেজি গাঁজা,১টি ইজিবাইক, ১টি মোটর সাইকেল, ১টি মোবাইল ও ১৩০০ প্যাকেট ভারতীয় সিগারেট উদ্ধার করা হয়। চোরাকারবারী রিংকু নামে একজন কে আটক করা হয়েছে। এছাড়া ও চোরাকারবারীর সতে জড়িত উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের নুনু বিশ্বাসের ছেলে সোহাগ মিয়া পালিয়ে যায়।এসব মালামালের আনুমানিক মূল্য ৩৮ লক্ষ ৫২হাজার ৭টাকা। এরই মধ্যে গত মঙ্গলবার (৭ই ডিসেম্বর) উপজেলার মেমনগর গ্রাম থেকে ২৩টি স্বর্ণের বার ২কেজি ৬৮৩ গ্রাম (২৩০ ভরি) পরিত্যাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য ১ কোটি ৪৪লক্ষ টাকা।