আলমডাঙ্গায় কিশোরী প্রেমিকার বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা

আলমডাঙ্গায় রাতের আঁধারে লুকিয়ে প্রেমিকের সাথে গল্প করার সময় প্রতিবেশীদের কাছে ধরা পড়ার পর বাবার দেওয়া বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে এক কিশোরী। তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

 

সোমবার চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার নাগদহ ইউনিয়নে ভোলারদাড়ি গ্রামে এঘটনা ঘটে। ওই কিশোরীর প্রেমিককে মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। অবশ্য রাতেই জিহাদকে মুচলেকা দিয়ে পরিবারের জিম্মায় দেয় পুলিশ।

 

স্থানীয়রা বলছেন, ওই কিশোরীর বাবা মেয়েকে বকাঝকা করে মেয়ের হাতে বিষ ও দড়ি তুলে দেয় আত্মহত্যার জন্য। ওই রাতেই বিষপান করে মেয়েটি। পরে তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে পরিবারের সদস্যরা।

 

স্থানীয় ইউপি সদস্য রনি মাহমুদ বলেন, সোমবার রাত ১০টার দিকে এলাকার একটি ক্যানেলে গল্প করছিল প্রেমিক-প্রেমিকা। বিষয়টি স্থানীয়দের নজরে এলে মেয়েটি পালিয়ে বাড়ি চলে যায় এবং ছেলেকে একটি কক্ষে আটকে পুলিশে হস্তান্তর করে। পরদিন সকালে শোনা যায় কিশোরী প্রেমিকা লোকলজ্জায় বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।

 

ঘোলদাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসএই) সিদ্ধার্থ মণ্ডল বলেন, মোবাইলের মাধ্যমে পরিচয় ছিল তাদের। সোমবার রাতে কিশোরী তার প্রেমিককে ডেকে গল্প করছিল। স্থানীয়রা জিহাদকে আটক করে মারধর করে এবং প্রেমিকাকে বাড়িতে পাঠায়।

তিনি আরও বলেন, ওই কিশোরীর বাবা বকাঝকা করে মেয়ের হাতে বিষ ও দড়ি তুলে দেয় আত্মহত্যার জন্য। রাতেই বিষপান করে মেয়েটি।