মুসকানের জন্য লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা ভালুকার চেয়ারম্যানের

শিক্ষার্থী মুসকান খান ও উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ

কর্ণাটকের প্রি-ইউনিভার্সিটি কলেজে একদল উগ্র হিন্দুত্ববাদী তরুণের সামনে ‘আল্লাহু আকবার’ ধ্বনি তোলা সাহসী শিক্ষার্থী মুসকান খানকে এক লাখ টাকা পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ।

 

বুধবার (৯ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে তার ফেসবুক পেজে এই ঘোষণা দেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ।

 

ফেসবুক পোস্টে তিনি লেখেন, ‌আল্লাহু আকবার বলা মেয়েটির জন্য এক লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করলাম। জানি না কীভাবে দেব, দেওয়ার ব্যবস্থা থাকলে জানাবেন। আল্লাহু আকবার।

 

তিনি বলেন, ওই ছাত্রীর সাহসিকতাকে সাধুবাদ জানাই। আমি তার জন্য এক লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছি। কীভাবে পাঠাবো জানি না। আপনারা জেনে থাকলে আমাকে জানান, পুরস্কারের টাকাটা পাঠাতে চাই।

 

তার এই ফেসবুক পোস্ট সাড়া ফেলেছে। নানা জন সেখানে নানা রকমের মন্তব্য করেছেন। সরকার আরিফ নামে একজন মন্তব্য করেন, মাশাআল্লাহ শুনে খুশি হলাম, আজ আমার কাছে মনে হচ্ছে একজন ভালো মানুষকে আমি ভোট দিয়েছিলাম।

 

সিদ্দিকুর রহমান নামের একজন লেখেন-মেয়েটির নামে কিছু দান-সদকা করে দিন আর মন থেকে দোয়া করুন মেয়েটির জন্য।

 

সম্প্রতি মুসকান খানের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এরপর থেকে মুসকানের সঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে আলোচনা চলছে বিশ্বব্যাপী।

 

ছড়িয়েপড়া ভিডিওতে দেকা যায়, হিজাব পরা মসাকানকে ঘিরে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিচ্ছে একদল তরুণ। তাদের প্রত্যেকের কাঁধে গেরুয়া উত্তরীয়। ভয় পেয়ে গুটিয়ে না গিয়ে হিজাব পরিহিত শিক্ষার্থী পাল্টা ‘আল্লাহু আকবার’ স্লোগান দিচ্ছেন।

 

এসময় হিজাব পরা মুসকানের পিছু পিছু আসতে থাকে গেরুয়া স্কার্ফধারী তরুণরা। তারা মুসকানকে কলেজ ভবন পর্যন্ত অনুসরণ করে। এরপর কর্মকর্তারা মুসকানকে সেখান থেকে সরিয়ে নেন।

 

এরপর থেকে হিজাব ইস্যুতে কর্ণাটকের অনেক স্কুল-কলেজে বিক্ষোভ চলছে। বিষয়টি নিয়ে কর্ণাটক হাইকোর্টে একটি মামলাও হয়েছে বলে জানা গেছে।