দৌলতপুরে ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলার আসামিকে গলাকেটে হত্যা

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে রুহুল সর্দার (৪০) নামে ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলার আসামির গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে উপজেলার ফিলিপনগর ইউনিয়নের চরসাদিপুর গ্রামের পিএসএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পেছনে মাঠ থেকে মাটিতে পোতা মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

 

দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম জাবীদ হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রুহুল সরদার চরসাদিপুর গ্রামের মুনতাজ সর্দারের ছেলে।

 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকেলের দিকে চরসাদিপুর গ্রামের পিএসএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পেছনে ৫০০ বিঘার মাঠে মাটি খোড়া দেখতে পাই। পরে সেই মাটির নিচে রুহুলের গলা কাটা মরদেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে খবর পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে পুলিশ।

 

রুহুলের মরদেহের পাশে রক্ত ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, বিরোধের জের ধরেই রুহুলকে হত্যা করা হয়েছে। রুহুল মাদক ও অস্ত্র কারবারিসহ নানা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম জাবীদ হাসান বলেন, রুহুলের বিরুদ্ধে ধর্ষণসহ একাধিক মামলা রয়েছে। কে বা কারা তাকে গলা কেটে হত্যা করেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অপরাধীদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।