দর্শনা স্থলবন্দর জমি অধিগ্রহনের পর দ্রুত চালু হবে: স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান

চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা স্থলবন্দরের জমি অধিগ্রহনের পর খুব শিঘ্রয় স্থবন্দরটি চালু হবে বলে জানালেন স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়রম্যান মোঃ আলমগীর।

 

মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে দর্শনা স্থল বন্দর পরিদর্শন করে এই কথা বলেন। দর্শনা সীমান্তবর্তী বাংলাদেশে জমির বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখেছেন। পরিদর্শন শেষে দুপুর ১টার দিকে দিকে দর্শনা আন্তর্জাতিক বিজিবি সম্মেলন কক্ষে প্রশাসন ও জন প্রতিনিধিদের সাথে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

সভায় তিনি বলেন, ২৬ শে ফেব্রুয়ারী দর্শনা স্থল পথ কে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর হিসাবে ঘোষনা করে গেজেট প্রকাশ করেছে এনবিআর। দর্শনা স্থলবন্দরের জন্য জমি অধিগ্রহনের কাজ শুরু হয়েছে। দর্শনা স্থলবন্দরটি মডেল বন্দর হিসেবে চালু করার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সরকার। খুব শিঘ্রই এই বন্দর চালু হবে।

 

এ সভায় উপস্থিত ছিলেন যশোর বেনাপোল স্থলবন্দর পরিচালক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ চেয়ারম্যানের একান্ত সচিব মোহাম্মদ করিম খান, ভূমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা মোঃ জসিম উদ্দিন, চুয়ডাঙ্গা জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শারমীন আক্তার, চুয়াডাঙ্গা এন.এস.আই পরিচালক জামিল হোসেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাদুল ইসলাম আজাদ, দর্শনা পৌর মেয়ার মতিয়ার রহমান,দামুড়হুদা উপজেলা চেয়ারম্যান আলী মুনছুর বাবু, চুয়াডাঙ্গা (দামুড়হুদা-জীবননগর) সার্কেল সহকারি পুলিশ সুপার মুন্না বিশ্বাস, দামুড়হুদা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুদীপ্ত কুমার সিংহ, দর্শনা কাস্টমস সহকারী কমিশনার সারাফত হোসেন, রাজস্ব কর্মকর্তা আব্দুল গনি, দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ এইচ এম লুৎফুল কবির, বিজিবির দর্শনা কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার মোঃ জহির হোসেন, দর্শনা আইসিপি বিজিবি পোষ্ট কমান্ডার নায়েক সুবেদার মোঃ আলাউদ্দিন, চুয়াডাঙ্গা জেলা চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক মোঃ হারুন-অর-রশিদ, দর্শনা সিএন্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আতিয়ার রহমান হাবু, দর্শনা স্থলবন্দর বাস্তবায়ন কমিটির যুগ্ন-আহবায়ক সাংবাদিক রেজাউল করিম লিটনসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

 

উল্লেখ্য, গত ২৬ শে ফেব্রুয়ারী দর্শনা স্থল পথ কে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর হিসাবে ঘোষনা করে গেজেট প্রকাশ করেছে এনবিআর।