মোংলায় যুবলীগ নেতা খুনের ঘটনায় আওয়ামী লীগ নেতাকে প্রধান আসামী করে মামলা, গ্রেফতার ৫

মোংলার বকুলতলা এলাকায় যুবলীগ নেতাকে খুনের ঘটনায় আওয়ামী লীগ নেতাকে প্রধান আসামী করে ২১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার সকালে এ হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহত যুবলীগ নেতার বড় ভাই কাদের সরদার। ওই এলাকার একটি বিবদমান চিংড়ি ঘের দখলকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ স্থানীয় ইউপি মেম্বর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল্লাহ শেখ গংয়ের হামলায় যুবলীগ নেতা মোতাহার সরদার নিহত হন।

 

মামলার বাদী ও পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার সোনাইলতলা ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ শেখ গং বকুলতলা এলাকার যুবলীগ নেতা মোতাহার সরদারদের চিংড়ি দখল নিতে হামলা চালায়। ওই সময় হামলাকারীরা মোতাহারসহ তার সাথে থাকা আরো ৬ জনকে কুপিয়ে জখম করেন। আহত ৭ জনের মধ্যে মোতাহার ঘটনার রাতেই মারা যান।

 

এ হত্যাকান্ডের দুইদিন পর খুন হওয়া মোতাহারের বড় ভাই কাদের সরদার বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সকালে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় ইউপি মেম্বর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল্লাহ শেখকে প্রধান আসামী করা হয়েছে। এতে আসামী করা হয়েছে ২১ জনের নাম উল্লেখ করে। আর অজ্ঞাত আসামী রয়েছে ১০/১৫ জন।

 

এদিকে এ মামলা দায়েরের পর বৃহস্পতিবার সকালেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে থেকে ৫ আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আটককৃতদেরকে দুপুরে বাগেরহাট আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। তারা হলো হালিম শেখ, হোসেন হাওলাদার, আসমাউল শেখ, রুবেল হাওলাদার ও সরোয়ার শেখ।

 

মোংলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বকুলতলায় খুনের ঘটনায় ইউপি মেম্বর আব্দুল্লাহকে প্রধান আসামী করে ২১ জনের নামসহ অজ্ঞাত আরো ১০/১৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের হয়েছে। এ মামলার ৫ জনকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।  বাকীদের গ্রেফতারে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।