মোংলায় ইউপি মেম্বারের খপ্পরে পড়ে ২ কোটি টাকার জমি খুইয়েছেন সংখ্যালঘু দুই ভাই

মোংলায় বহুল আলোচিত ভূমিদস্যু ও ধর্ষণ মামলার অভিযুক্ত আসামী ইউপি মেম্বার জাহাঙ্গীর মল্লিকের খপ্পরে পড়ে জমি খুইয়ে এখন সর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন একটি সংখ্যালঘু পরিবারের দুই ভাই।

 

ওই জমি নিয়ে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার জাহাঙ্গীর মল্লিকের চক্রান্তে মালগাজী গ্রামের চৌকিদারের মোড়ের বাসিন্দা নরোত্তম বিশ্বাস ও প্রেমানন্দ বিশ্বাসের প্রায় ছয় একর জমি ইতোমধ্যে হাতছাড়া হয়ে গেছে।

 

মেম্বার জাহাঙ্গীর মল্লিক নরোত্তম ও প্রেমানন্দ বিশ্বাসের বাবা কৃষ্ণপদ বিশ্বাসকে ক্ষমতার দাপটে নিজের কব্জায় নিয়ে প্রায় দুই কোটি টাকার জমি বিক্রি করে দিয়েছেন। এরমধ্যে নিজের নামেও বেশ কয়েক বিঘা জমি দলিল করে নিয়েছেন মেম্বার জাহাঙ্গীর। এনিয়ে আদালতে মামলা ও থানাসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগও দায়ের হয়েছে।

 

বিভিন্ন দপ্তরে ভুক্তভোগী নরোত্তম বিশ্বাসের দায়েরকৃত অভিযোগের প্রেক্ষিতে জানা যায়, বাবা কৃষ্ণপদ বিশ্বাসের উপর আস্থা না থাকায় তার দাদা দর্শন বিশ্বাস ও দাদী পদ্মবতী বিশ্বাস তাদের চার নাতি নরোত্তম বিশ্বাস, প্রেমানন্দ বিশ্বাস, গৌরঙ্গ বিশ্বাস ও নিত্যানন্দ বিশ্বাসকে ১৯৮২ ও ৮৮ সালে মালগাজী মৌজার চার একর ১৬ শতক করে মোট ৩২ বিঘা জমি রেজিষ্ট্রি দলিল করে দেন। এরমধ্যে গৌরঙ্গ বিশ্বাস ও নিত্যানন্দ বিশ্বাস তাদের অংশের জমি বিক্রি করে দেন। বাকী দুই ভাই নরোত্তম ও প্রেমানন্দ বিশ্বাসকে তার বাবা কৃষ্ণপদ বিশ্বাস বিদেশ পাঠানোর কথা বলে কৌশলে তাদের অংশের ৮ একর ৩২ শতক জমির পাওয়ার
(আমোক্তার নামা) নিয়ে নেন। কিন্তু বিদেশ না পাঠিয়ে দুই ভাইয়ের ৪৮ শতক জমি বিক্রি করে দেয় তাদের বাবা কৃষ্ণপদ বিশ্বাস।

 

বিষয়টি জানতে পেরে ২০১৫ সালে তাদের বাবাকে দেওয়া জমির পাওয়ার (আমোক্তার নামা) বাতিলে আদলতে মামলা দায়ের করেন ভূক্তভোগী নরোত্তম বিশ্বাস। এরপর মামলার প্রেক্ষিতে আদালত ওই জমির উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়। সর্বশেষ এনিয়ে শনিবার দুপুরে আবারো থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। এ অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, পূর্বের আদালতের মামলা ও নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করে স্থানীয় মেম্বার ধর্ষণ মামলার আসামী ও ভূমিদস্যু জাহাঙ্গীর মল্লিকের খপ্পরে পড়ে ৬ একর জমি বিক্রি করে দিয়েছেন নরোত্তম এবং প্রেমানন্দ বিশ্বাসের বাবা কৃষ্ণপদ বিশ্বাস। বিক্রি হওয়া প্রায় দুই কোটি টাকার জমির মধ্যে বিতর্কিত মেম্বার জাহাঙ্গীর একাই কিনেছেন এক কোটি ৫৬ লাখ টাকার জমি। এ বিষয়ে সালিশ ব্যবস্থার মাধ্যমে মিমাংসা করতে গেলে ভুক্তভোগী নরোত্তম বিশ্বাসকে জাহাঙ্গীর মেম্বার তার নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দেয় বলে থানায় অভিযোগও করা হয়েছে।

 

মোংলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম বলেন, শনিবার দুপুরে এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি, ঘটনাস্থলে পুলিশও পাঠানো হয়েছে। অভিযোগের তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কমলেশ মজুমদার বলেন, পাওয়ারনামার কোন জমির উপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলে কোন ব্যাক্তি সেই জমি বিক্রি করতে পারবেন না।

 

এ বিষয়ে নরোত্তম ও প্রেমানন্দ বিশ্বাসের বাবা কৃষ্ণপদ

 

বিশ্বাস বলেন, আমি কিছুই বলবো না, জাহাঙ্গীর মেম্বারের কাছে শোনেন, বলেই ফোন কেটে দেন।
আর জাহাঙ্গীর মেম্বার বলেন, পাওয়ারনামা নিয়ে কৃষ্ণপদ বিশ্বাস নিজেই জমি বিক্রি করছেন, আমাকে কেন কি কারণে এতে জড়ানো হচ্ছে জানিনা।