কালিয়াকৈরে ঘুমান্ত স্ত্রী গায়ে গরম তৈল দিয়ে শরীর ঝলসে দেওয়ার অভিযোগ

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর আহম্মদ নগর এলাকায় গত শুক্রবার গভীর রাতে বিউটি আক্তার (২২) নামের এক নারীকে ঘুমন্ত অবস্থায় গরম তৈল দিয়ে পুরো শরীর ঝলসে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে।

 

অভিযুক্ত স্বামী মাসুদ সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর থানার জগতলা এলাকার মো. মফিজ সরকারের ছেলে মো. মাসুদ সরকার বলে জানা যায়।

মাসুদ ও তার স্ত্রী বিউটি উপজেলার আহম্মদ নগর চৌরাস্তা এলাকায় কাদের সিকদারের বাড়িতে ভাড়া থেকে পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। পরিবার ও মামলার সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী বিউটি আক্তারের সাথে ৫ বছর পূর্বে মাসুদের বিয়ে হয়।
গত শুক্রবার (১৩মে) রাত অনুমানিক দেড়টায় অভিযুক্ত মাসুদ সরকার কড়াইয়ের মধ্যে সয়াবিন তেল গরম করে ঘুমন্ত বিউটি আক্তারের মুখসহ সারাদেহে ঢেলে দেয়।এই সময় বিউটি আক্তারের ডাক চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে বিউটির স্বামী মাসুদ পালিয়ে যায়। পরে লোকজন সারাদেহ ঝলসে যাওয়া বিউটি আক্তারকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তাররা তার আশংকাজনক অবস্থা দেখে রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটটে রেফার করেন।

 

এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর ভাই জনাব হাসান মোল্লা বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানায় গতকাল সোমবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

 

জানা যায়, বিবাহের পর থেকেই বিউটির স্বামী মাসুদ ও তার পরিবারের লোকজন যৌতুকের দাবিতে নানাভাবে অন্যায় অত্যাচার করায় বিউটি আক্তার তার স্বামী মাসুদসহ তার পরিবারের লোকজনদের নামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ সিরাজগঞ্জে মামলা দায়ের করেন। পরে ওই মামলা বিচারাধীন থাকা অবস্থায় মাসুদ সরকার ৪ মাস আগে এলাকার গণ্যমান্য লোকজনকে ধরে বিউটির সাথে আপোষ করে পুনরায় সংসার শুরু করেন। তারপরও অভিযুক্ত মাসুদ মাঝে মধ্যেই বিউটি আক্তারকে বিভিন্ন ধরনের জ্বালা-যন্ত্রণা শুরু করেন।

 

উক্ত অভিযোগটি সত্যতা নিশ্চিত করে কালিয়াকৈর থানার তদন্ত (ওসি) আবুল বাশার জানান, এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত মাসুদ সরকারকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।