বেনাপোলে ট্রান্সপোর্ট এজেন্সির ধর্মঘট প্রত্যাহার

বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক সমিতির পূর্বঘোষিত ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে। বেনাপোল বন্দরে পর্যাপ্ত ক্রেন ও ফর্কলিফটের দাবিতে শনিবার অনির্দিষ্টকালের জন্য ডাকা ধর্মঘট সোমবার (১৬ মে) সন্ধ্যায় প্রত্যাহার করে নিয়েছে ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক সমিতি।

 

বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যৌথ আলোচনার ভিত্তিতে ৫টি শর্তে এই ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেন তারা। শর্তগুলো হলো-

 

০১.বন্দর কর্তৃপক্ষ আগামী ৩১ মে’র মধ্যে ৩টি ক্রেন ও ৩টি ফর্কলিফট বন্দরে সংযুক্ত করবে।
০২. অদক্ষ ক্রেন ও ফর্কলিফট চালক পরিবর্তন করে বন্দর কর্তৃপক্ষ ৩১ মে’র মধ্যে দক্ষ চালক নিয়োগ দেবে।
০৩. প্রত্যেক চালককে সকাল ৯টার মধ্যে কর্মস্থলে যোগদান নিশ্চিত করবে।
০৪. বিকেল ৩টার মধ্যে পণ্য লোড-আনলোডের জন্য সিরিয়াল গ্রহণ করবে এবং সিরিয়াল অনুযায়ী বিরতিহীনভাবে কাজ করবে।
০৫. বন্দর কর্তৃপক্ষ আগামী ১৬ জুলাইয়ের মধ্যে বন্দরে চাহিদা অনুযায়ী ক্রেন ও ফর্কলিফট সংযুক্ত করবে।

 

আগামী ১৬ জুলাইয়ের মধ্যে শর্তগুলো যথাযথভাবে পূরণ না করলে পরবর্তীতে সমিতির পক্ষ থেকে কঠোর নির্দেশনা ঘোষণা করা হবে বলে জানান বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আজিম উদ্দীন গাজি।

 

এদিকে বেনাপোল বন্দরের উপ পরিচালক (ট্রাফিক) মামুন কবীর তরফদার জানান, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ৩টি নতুন ক্রেন ও ৩টি ফর্কলিফট বন্দরে সংযোজন করা হবে। আগামী এক মাসের মধ্যে পুরোনো ক্রেন ও ফর্কলিফটগুলো পরিবর্তন করে সব নতুন ক্রেন ফর্কলিফট পণ্য ওঠানো-নামানোর জন্য দেওয়া হবে এই মর্মে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। আশা করছি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে এ কাজ সম্পন্ন হবে। মঙ্গলবার (১৭ মে) সকাল থেকে ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতি পণ্য লোড-আনলোড শুরু করেছে।