কালিয়াকৈরে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার (২৪ মে) সকালে কালিয়াকৈর উপজেলার চাপাইর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটেছে।

 

নিহত গৃহবধূ কালিয়াকৈর উপজেলা চাপাইর এলাকার ভজন দাসের মেয়ে মুক্তা দাস (১৯) বলে জানা গেছে।

 

পরিবার জানান, প্রায় দেড় বছর আগে প্রেমের সম্পর্ক করে সুত্রাপুর ইউনিয়নের নেপাল দাস, মুক্ত দাসকে বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকেই স্বামী নেপাল ও তার বাবা-মা এবং বোন মুক্তার ওপর বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করে আসছিল তারা। স্বামীর পরিবার বিয়ের পর থেকেই তাকে মেনে নিতে পারেননি। এ বিষয় নিয়ে কয়েকবার গ্রাম্য সালিশও হয়েছে। নেপাল দাস ও স্ত্রী হিসাবে তাকে মেনে নিতে পারেনি। পরে নেপাল ভারত যাবে বলে মুক্তা দাসকে তার বাবার বাড়িতে রেখে যায়।

 

মুক্তা দাস স্বামীকে ফোন দিলে ফোন রিসিভ করে নেপাল জানিয়ে দেন আমি ভারত চলে আসছি এখন দেশে আসা সম্ভব না। পরে বেশিরভাগ সময়ে মুক্তা দাস তার বাবার বাড়ি থাকতে শুরু করেন।

 

গতকাল সোমবার মুক্তার মা দিপালী দাস মেয়ের শ্বশুরকে খবর দিলে মুক্তাকে এসে নিয়ে যায়। মুক্তা শ্বশুর বাড়ি যাওয়ার পর থেকেই স্বামী নেপালের ছোট বোন মুক্তা দাসকে নির্যাতন করেন।

 

একপর্যায়ে নির্যাতন সইতে না পেরে ঘরের দরজা বন্ধ করে মুক্তা দাস ঘরে প্রবেশ করে। এরপর অনেকক্ষণ হয়ে গেলেও মেয়েটি দরজা না খোলায় ডাকাডাকি করতে থাকে। পরে দেখা গেছে মেয়ে মুক্তা দাস ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলে রয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন।

 

কালিয়াকৈর থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) রকিবুল হোসেন জানান, খবর পেয়ে মরদেহটি উদ্ধার করা গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে হত্যা না আত্মহত্যা।