স্বরূপকাঠির ইন্দুরহাট বন্দরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ৯ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠির ইন্দুরহাট বন্দরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৪ দোকান সম্পূর্ণ ভস্মিভূত ও পাঁচটি দোকান আংশিক পুড়ে গেছে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে ইন্দুরহাট-মিয়ারহাট ব্রিজের দক্ষিণ পাড়ে ওই ভয়াবহ  অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

 

এ ঘটনায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় কোটি টাকা বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। উপজেলার সোহাগদল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রশিদ জানান, মঙ্গলবার রাতে বন্দরের আল হোসাইনী অপটিকস দোকানে আগুন দেখে ব্যবসায়ীরা ডাক-চিৎকার দিলে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে ছুটে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালায়।

 

খবর পেয়ে স্বরূপকাঠি ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। আগুনে আল হোসাইনী অপটিকস, আরাবী ইলেকট্রনিকস, জননী ইলেকট্রনিকস ও শুভ ডেন্টাল কেয়ার সম্পূর্ণ এবং সোয়াদ ফার্মেসি, শেফা মেডিক্যাল হল, আসিফ মেডিক্যাল হল, একটি গোডাউন ও সি স্কাই গার্মেন্টের আংশিক পুড়ে যায়। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় প্রায় কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা জানান।

 

স্বরূপকাঠি ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মো. আব্দুস সালাম জানান,  বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ইন্দুরহাট বন্দরের ব্যবসায়ীরা ক্ষোভের সঙ্গে জানান, নদীর পূর্ব পাড়ে ফায়ার সার্ভিসের একমাত্র  স্টেশন থাকায় পশ্চিম পাড়ে বিসিক শিল্পনগরীসহ দুটি বন্দর ও বাসাবাড়িতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে দমকল বাহিনীকে আসতে অনেক বেগ পোহাতে হয় এবং সময় লাগে। যদিও এখন সন্ধ্যা নদীতে ফেরি পারাপার শুরু হওয়ার কারণে সেই দুর্ভোগটা কমেছে। তবে পশ্চিম পাড়ে আরেকটি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন থাকলে ক্ষতির পরিমাণটা কম হতো।

 

পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘ অগ্নি দুর্ঘটনার খবর  পেয়ে তাৎক্ষনিক স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস, প্রশাসনের লোকজন,দলীয় নেতৃবৃন্দ ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলেছিলাম। সরকারের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের যত দূর সম্ভব সহযোগিতা করা হবে। অতি দ্রুত স্বরূপকাঠির সন্ধ্যা নদীর পশ্চিম পাড়ে একটি নৌ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন করা হবে বলেও তিনি জানান।