বাগেরহাটে ট্রাকচাপায় প্রকৌশলীকে হত্যা, চালক গ্রেফতার

বাগেরহাটে ট্রাকচাপায় মশিউর রহমান (৪৫) নামে এক প্রকৌশলীর নিহতের ঘটনায় চালক মিজানুর রহমানকে (৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে খুলনার তেরখাদা এলাকা থেকে রং পরিবর্তন কালে পিকআপটিও জব্দ করা হয়। আজ শনিবার দুপুরে বাগেরহাট পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক এ তথ্য জানান।

 

গ্রেফতার চালক মিজানুর রহমান বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার ইসলামাবাদ গ্রামের এসকেন্দার সেখের ছেলে। তাকে শুক্রবার (৩ জুন) বিকেলে জেলার মোল্লাহাট উপজেলার গাওলা এলাকায় আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় গ্রেফতার করা হয়।

 

নিহত প্রকৌশলী মশিউর রহমান বাগেরহাট সদর উপজেলার গোটাপাড়া এলাকার মৃত আ. মজিদের ছেলে। বাগেরহাটের লোকাল গভর্নমেন্ট ইনিশিয়েটিভ অন ক্লাইমেট চেঞ্জ (লজিক) প্রকল্পের প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি।

 

জানা যায়, গত ২২ মে সকালে বাগেরহাটে যাওয়ার সময় মুনিগঞ্জ সেতু টোলপ্লাজার ব্যারিকেড ভেঙে ওই প্রকৌশলীর মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয় ট্রাকটি। এ সময় মোটরসাইকেল থেকে পড়ে ট্রাকের নিচে চাপা পড়েন তিনি। স্থানীয়রা তাঁকে উদ্ধার করে বাগেরহাট জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রকৌশলীকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক বলেন, গ্রেপ্তারকৃত মিজানুর রহমান ওই ট্রাকের মূল চালক ছিলেন না। তিনি ট্রাকের হেলপার ছিলেন। ঘটনার দিন ট্রাকের মূল চালক ও অন্য একজন হেলপার মিজানুরের পাশে বসা ছিলেন। মাদক সেবন করে ট্রাক চালাচ্ছিলেন মিজানুর রহমান। যখন মাদক সেবন করেছিলেন তখন কেউ হয়তো তাঁকে দেখে ফেলেছিলেন। এ কারণেই দ্রুতগতিতে ট্রাক চালাচ্ছিলেন তিনি। পরে মুনিগঞ্জ টোলপ্লাজায় এসে প্রকৌশলীর মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দিয়ে ব্যারিকেড ভেঙে পালিয়ে যায়। এ সময় ট্রাকচাপায় মারা যান প্রকৌশলী।

 

পুলিশ সুপার আরও বলেন, ট্রাকচাপায় প্রকৌশলীর মৃত্যুর পর থেকেই চালক ও ট্রাকের মালিকপক্ষ বিষয়টি গোপন করার চেষ্টা করে। তাঁরা ট্রাকের নম্বর প্লেট ও রং পরিবর্তন করে ফেলেন। এরপরও পুলিশ তেরখাদা থেকে ট্রাকটি জব্দ করে। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মোল্লাহাট উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ঘাতক মিজানুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

 

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মিজানুর রহমান প্রকৌশলীকে চাপা দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। আইনি প্রক্রিয়া শেষে আসামিকে আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

 

অভিযান চলাকালে উপস্থিত ছিলেন-অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আছাদুজ্জামান, মো. রাসেলুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. মাহমুদ হাসান ও বাগেরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেএম আজিজুল ইসলাম।