যশোরে ট্রাকের মালিক ড্রাইভারকে হত্যা করে ট্রাক নিয়ে পালিয়ে গেছে সাথে থাকা ড্রাইভার

যশোর সদর উপজেলার বসুন্দিয়া ইউনিয়নের পদ্মবিলা এলাকায় ট্রাক ড্রাইভার রেজাউল করিম(৪০)কে গলায় রশি দিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করে লাশ পুকুরের পানিতে ফেলে দিয়ে ট্রাক ছিনতাই করে নিয়ে পালিয়ে গেছে সাথে থাকা ছিনতাইকারী সহকারী ড্রাইভার।

 

ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার দিবাগত রাতে জেলার যশোর-খুলনা মহাসড়কের পদ্মবিলা বাজারের পাশে।

 

মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। নিহত রেজাউল করিম বরিশাল জেলার গৌরনদী উপজেলার টরকির চর এলাকার মৃত্যু ইউনুস বয়াতির ছেলে।

 

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার সকালসাড়ে ৯টার দিকে পদ্মবিলা এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের পুকুরের পানিতে ট্রাক ড্রাইভার রেজাউল করিমের মৃতদেহটি গলায় রশি দিয়া অবস্থায় ভাসতে দেখে। পরপরই পুলিশকে খবর দিলে সকাল দশটার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মৃতদেহটি উদ্ধার করেন। তবে প্রথম দিকে লাশের শনাক্ত না হলেও পরে পুলিশ অনুসন্ধান করে মৃতদেহটির পরিচয় ও হত্যা কারণ শনাক্ত করেন।

 

নিহতের ভাই মাজাহারুল ইসলাম জানান, বেশ কয়েক বছর ধরে তার ভাই ট্রাকের ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলো। ট্রাকের অপর চালক হৃদয় হোসেন সবসময় তার ট্রাকে থাকতো। দুইজন মিলে মিশে ট্রাক চালাতো। আজ সকালে পুলিশের মাধ্যমে জানতে পারি খুলনা-যশোর মহাসড়ের বসুন্দিয়া পদ্মবিলা এলাকায় একটি পুকুরে গলায় রশি দিয়া অবস্থায় তার ভাইয়ের মৃতদেহটি পেয়েছে। তিনি দুপুরে যশোর জেনারেল হাসপাতালে এসে তার মৃতদেহ শনাক্ত করেছেন। তিনি তার ভাইয়ের হত্যাকারীদের আটক করে বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

 

কোতোয়ালি মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুজ্জামান মঙ্গলবার সকালে স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহত ব্যক্তির প্রথমদিকে পরিচয় পাওয়া না গেলেও পরে পুলিশ অনুসন্ধান করে নিহতের নাম পরিচয় শনাক্ত করেছেন। জানা গেছে নিহত রেজাউল ইসলাম নিজের ঢাকা মেট্রা-ট- ২২-২১১৯ নাম্বারের ট্রাকটি নিজেই চালাতেন। সাথে হৃদয় নামে একজন সহকারি ড্রাইভার থাকতেন। তাকেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

 

নিখোঁজ ট্রাকটির অবস্থান অনুসন্ধান করা হচ্ছে। ট্রাকটির সন্ধান পেলে ও হৃদয়ের অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারলে হত্যাকারী পরিচয় শনাক্ত করা ও আটক করা সম্ভব হবে বলে তিনি জানান।