দৌলতপুর নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ: ৩দিন পর নারীর লাশ উদ্ধার

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তের মাথাভাঙ্গা নদীতে নিখোঁজ নারীর লাশ প্রায় ৪০ ঘন্টা পর উদ্ধার করেছে দৌলতপুর থানা পুলিশ। গত ২৭/০৮/২১ ইং আনুমানিক বেলা সাড়ে ৩টায় মাথাভাঙ্গা নদীতে গোসল করতে নেমে আনজুয়ারা খাতুন (৩৫) নিখোঁজ হয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।বাড়ীর পাশে মাথাভাঙ্গা নদীতে গোসল করতে নেমে নদীতে তলীয়ে যায় আনজুয়ারা খাতুন ।

এলাকার লোকজন অনেক খোজাখুজির পরও মেলেনি নিখোঁজ আনজুয়ারা খাতুনের। পরদিন গত ২৮ তারিখে খুলনা থেকে ডুবুরি এসে দিনভর খোজাখুজি করেও উদ্ধার করতে পারেনি।

রবিবার সকাল সাতটার সময় স্থানীয় লোকজন মাথাভাঙ্গা নদীর পাড়ের জঙ্গলে আটকে থাকতে দেখলে সাথেসাথে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন এসে আনজুয়ারা খাতুনের লাশ উদ্ধার করে ।

তিন সন্তানের জননী আনজুয়ারা খাতুন দৌলতপুর সীমান্তের ধর্মদহ গ্রামের আকালী কারীগরের মেয়ে। সে ভেড়ামারা উপজেলার কুচিয়ামোড়া গ্রামের মৃত্যু আনারুল ইসলামের স্ত্রী। স্বামী আনারুলের মৃত্যু হয় তিন বছর আগে, অভাবের তাড়নায় তিন সন্তান সহ আনজুয়ারা চলে আসে বাবার বাড়ীতে।

এ বিষয়ে দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসির উদ্দীন জানান, দৌলতপুর সীমান্তের ধর্মদহ গ্রামের আকালী কারীগরের মেয়ে আনজুয়ারা খাতুন (৩৫) গত ২৭/০৮/২১ ইং আনুমানিক বেলা সাড়ে ৩ টার সময় মাথাভাঙ্গা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হয়, দু‘দিন স্থানীয় লোকজন ও গতকাল খুলনা থেকে ডুবুরি এসেও সন্ধান করতে পারেনি। ২৯ তারিখ সকাল সাতটার সময় স্থানীয় লোকজন ফোন করে জানালে সাথেসাথে পুলিশ পাঠিয়ে লাশ উদ্ধার করি।

লাশের সুরতহাল প্রস্তত করে লাশ দাফনের জন্য তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।