ইতিহাসে সবচেয়ে শক্তিশালী হারিকেনের আঘাতে লণ্ডভণ্ড লুইজিয়ানা

ঘণ্টায় দুইশ' ৪০ কিলোমিটার বেগে রোববার(২৯ আগস্ট) লুইজিয়ানা উপকূলে আঘাত হাতে চার মাত্রার হারিকেন আইডা।

ঘণ্টায় দুইশ’ ৪০ কিলোমিটার বেগে রোববার(২৯ আগস্ট) লুইজিয়ানা উপকূলে আঘাত হাতে চার মাত্রার হারিকেন আইডা। এর প্রভাবে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে গোটা নিউ অরলিন্স শহর। দেখা দিয়েছে ভারি বৃষ্টি ও জলোচ্ছ্বাস। প্রাণহানির আশঙ্কায় আগেই সরিয়ে নেয়া হয় প্রবাসীসহ স্থানীয় বাসিন্দাদের।

১৮৫০ সালের পর যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে শক্তিশালী হারিকেন আছড়ে পড়লো রোববার দুপুরে। লুইজিয়ানার উপকূলে ঘণ্টায় ২শ ৪০ কিলোমিটার বেগে আঘাত হানে চার মাত্রার হারিকেন আইডা। এরপর থেকেই ওই অঞ্চলজুড়ে ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত আছে। অনেক জায়গায় দেখা দিয়েছে জলোচ্ছ্বাস। আকস্মিক বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন।
এদিকে, প্রবল বাতাসের কারণে লুইজিয়ানার পাঁচ লাখের বেশি মানুষ বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার আশঙ্কায় উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষদের ঘরের বাইরে বের না হতে অনুরোধ করেছেন গভর্নর জন বেল এডওয়ার্ডস।
তবে, প্রাণহানী কমাতে আগে থেকেই উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষদের নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। নিরাপদে আছেন প্রবাসী বাংলাদেশীরাও। উদ্ধারকাজে অংশ নিয়েছেন অনেক প্রবাসীও।
এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ঘূর্ণিঝড় পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। আইডাকে ‘ভয়ংকর’ উল্লেখ করে অঙ্গরাজ্যটির মানুষদের সতর্কতা মেনে চলতে বলেছেন তিনি।
এরআগে, হারিকেন আইডা(২৭ আগস্ট) শুক্রবার স্থানীয় সময় বিকেলে ঘণ্টায় ১২৮ কিলোমিটার বেগে কিউবার উপকূলে আঘাত হানে। এতে ভারি বৃষ্টিপাত হয় দক্ষিণাঞ্চলসহ বেশ কিছু এলাকায়। প্রচন্ড বাতাসে উপড়ে যায় গাছপালা। বিধস্ত হয় কয়েকশ ঘরবাড়ি। ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় শস্যক্ষেতের।
অতিবৃষ্টিতে বেশ কিছু অঞ্চলে দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন থাকায় বিপাকে পড়ে কয়েক হাজার মানুষ। স্থানীয় এক নারী বলেন, প্রচন্ড বাতাস ও ভারি বৃষ্টিপাত হয়েছে এখানে। প্রচন্ড বাতাসে আমার ঘরের চাল উড়ে গেছে।
আরেকজন বলেন, উপকূলের কাছাকাছি এলাকায় প্রচন্ড ঝড় হয়েছে। পূর্ব প্রস্তুতি থাকায় আমাদের বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। কিন্তু বৃষ্টি না থামলে বন্যা দেখা দেবে। পশুপাখিকে বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়বে।
বেশকিছু এলাকায় ভূমিধস ও বন্যা সর্তকতা জারি করা হয়েছে। প্রায় এক হাজার বাসিন্দাকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়। তবে পূর্ব প্রস্তুতি থাকায় এখন পর্যন্ত কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।
এর আগে ২০০৫ সালে এই দিনে লুইজিয়ানাসহ আশপাশের এলাকায় আঘাত করেছিল ক্যাটরিনা। যা ছিল ঐতিহাসিকভাবে বিধ্বংসী এক ঘূর্ণিঝড়। এতে মারা গিয়েছিল ১ হাজার ৮০০ মানুষ। ক্যাটরিনা ছিল ক্যাটাগরি তিন ঘূর্ণিঝড়। আর আইডা চার মাত্রার ঘূর্ণিঝড় বলে জানিয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যমগুলো।