যশোরে আন্তঃজেলা মোটরসাইকেল চোর চক্রের ১০ সদস্যকে আটক

আন্তঃজেলা মোটরসাইকেল চোর চক্রের ১০ সদস্যকে আটক করেছে যশোর ডিবি পুলিশ। তাদের কাছ থেকে ১১টি মোটরসাইকেল, দুই লাখ ২৫ হাজার টাকা, তিনটি মাস্টার চাবি ও তিনটি কুরিয়ার রশিদ উদ্ধার করা হয়েছে।

যশোর, মাগুরা, রাজবাড়ী ও ফরিদপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। যশোরের কেশবপুর থানার একটি মোটরসাইকেল চুরি মামলার তদন্তে নেমে এ চোর চক্রের সন্ধান পায় ডিবি যশোর।

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম এ তথ্য জানান। এ সময় যশোর ডিবি পুলিশের ওসি রুপন কুমার সরকারসহ পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আটককৃতরা হলেন- গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি উপজেলার পারকোরপা গ্রামের মতি মোল্লার ছেলে নুর ইসলাম (৩০), নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার বরুমানিনগর নলদী গ্রামের গোলাম মোস্তফা শেখের ছেলে আলামিন শেখ (২৮), খুলনার ফুলতলা উপজেলার গাড়াখোলা গ্রামের মৃত জাকির হোসেনের ছেলে আক্তার হোসেন (৩৯), যশোর সদর উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের আকসেদ গাজীর ছেলে ফারুক গাজী (৩৬), নরেন্দ্রপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে কবীর ওরফে নূর ইসলাম (৪০)।

এ ছাড়াও মাগুরা সদর উপজেলার পার নান্দুয়ালী মোল্পাপাড়া গ্রামের এনামুল হকের ছেলে চঞ্চল (৩১), আসলাম মোল্যার ছেলে রশিদুল (৩২), মুন্সি মাহমুদুল হকের ছেলে মুজিবুল হক (৩৩), কেশবপুর উপজেলার কাজীর বেড় গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে মাধু (৩২), রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি থানার সর্পবাতেঙ্গা গ্রামের জোমারত মলিকের ছেলে সালাম মলিক (৩৬)।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, প্রাাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা একটি সংঘবদ্ধ মোটরসাইকেল চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে স্বীকার করেছে। তারা যশোর জেলাসহ আশপাশ জেলা সমূহে মোটরসাইকেল চুরি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে এস এ পরিবহন ও জননী কুরিয়ারের মাধ্যমে ও সরাসরি ক্রয় বিক্রয় করে। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।