বিধানসভায় নামাজ ঘর, প্রতিবাদে রাস্তায় বিজেপি

ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্য বিধানসভায় মুসলমান বিধায়ক ও কর্মীদের নামাজ পড়ার জন্য স্পিকার একটি ঘর বরাদ্দ করায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে বিজেপি। নামাজ ঘর বরাদ্দের প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে আসে দলটির নেতাকর্মীরা। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাজ্যজুড়ে ‘কালো দিবস’ পালন করে বিজেপি।

বুধবার দলটির কর্মী সমর্থকরা রাস্তায় বিক্ষোভ করার সময়ে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে। তবে বিজেপির প্রতিবাদের ফলে স্পিকার রবীন্দ্রনাথ মাহাতো বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন যে, নামাজের ঘর রাখা হবে কী না, তা একটি সর্বদলীয় কমিটি স্থির করবে।

কয়েক দিন আগে এক নির্দেশ জারি করে বিধানসভা সচিবালয় জানায়, টি ডব্লিউ ৩৪৮ নম্বর ঘরটিকে নামাজ পড়ার জন্য ব্যবহার করা হবে। এই নির্দেশ জারি হতেই বিজেপি প্রতিবাদ শুরু করে। গত সোমবার বিধানসভার অধিবেশন শুরু হতেই দলটির বিধায়করা বিক্ষোভ দেখান। তারা ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগানও দেন।

ওই রাজ্যে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার নেতৃত্বাধীন সরকার রয়েছে ২০১৯ সাল থেকে, আর বিজেপি সেখানে প্রধান বিরোধী দল। তাদের অভিযোগ, মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সরেন তোষণের রাজনীতির সব সীমা ছাড়িয়ে গেছেন।

সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী দলনেতা বাবুলাল মারান্ডি টুইট করে লিখেছেন, ‘ঝাড়খণ্ড বিধানসভায় কোনও একটি শ্রেণীর জন্য নামাজ ঘর করে দেওয়া শুধু একটা ভুল পরম্পরা চালু করাই নয়, এই সিদ্ধান্ত গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের সম্পূর্ণ বিপরীত।’

স্পিকার রবীন্দ্রনাথ মাহাতো বলছেন, ‘আগের ভবনেও মুসলিম কর্মচারীদের নামাজ পড়ার জন্য একটি ঘর ছিল। নতুন ভবনেও সে রকম একটি ঘরের আবেদন এসেছিল যেখানে তারা নিয়মিত নামাজ পড়তে পারবেন। তাদের আবেদন অনুযায়ী একটা খালি ঘর দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন এ নিয়ে অহেতুক বিতর্ক হচ্ছে। সূত্র: বিবিসি।