সোনিয়া মা হয়েছে কিন্তু বাবা হচ্ছে না কেউ

প্রতিকি ছবি

স্বামী কখনও সন্তানের বাবা হতে পারবেনা জেনেও স্বামীর সংসার আঁকড়ে পড়ে ছিল স্ত্রী সোনিয়া। কিন্তু খালাতো দেবর হাবিবুরের প্রলোভনে মা হবার বাসনায় তাকে দেহ দান করে ঠিকই মা হয়েছে সোনিয়া কিন্তু এ সন্তানকে মেনে নিতে চাইছেন না স্বামী সুমন।

সমাজপতিরাও বিচার করেনি। অবশেষে গাংনী থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে সোনিয়ার মামি হোসনেয়ারা। ঘটনাটি ঘটেছে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সহড়াবাড়িয়া গ্রামের সাজি পাড়ায়।

সোনিয়ার মামি হোসনেয়ারা জানান, সোনিয়ার বাবা গাংনীর কোদাইলকাটি গ্রামের জাহাঙ্গীর তার মাকে ছেড়ে দেয়। পরে মা অন্যত্র বিয়ে করার পর ছোট বেলা থেকেই মামা বাড়িতে থাকে সোনিয়া। বছর দেড়েক আগে তার বিয়ে হয় সহড়াবাড়িয়া গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে সুমনের সাথে। বিয়ের পরপরই জানতে পারে স্বামী সুমন কখনও সন্তানের বাবা হতে পারবেনা। তবুও সোনিয়া সংসার আঁকড়ে পড়ে ছিল।

এদিকে খালাতো দেবর একই গ্রামের মৃত সুলতান শাহ্র ছেলে হাবিবুর ভাবী সোনিয়াকে নানাভাবে উত্যক্ত করতো। এক সময় সন্তানের মা হবার স্বপ্ন দেখায় সে। সন্তানের মা হবার প্রলোভনে পড়ে দেবর হাবিবুরকে নারী জাতীর চরম সম্পদ বিলিয়ে দেয় সোনিয়া। তার শরীরের ভেতরে বেড়ে উঠেছে আরেকটি শরীর। বিষয়টি জেনে যায় পরিবার প্রতিবেশি এমন কি গ্রামবাসিরাও।

স্বামি সুমন এ অনাগত সন্তানকে মেনে নিতে চান নি। স্ত্রীকে বাড়ি থেকে বিতাড়িত করতে চেষ্টা করে। বসে গ্রাম্য সালিশি। সালিশে গ্রামের মাসুদ মেম্বর স্বামি সুমনকে সোনিয়াকে ঘরে তুলে নিতে বলে এবং টাকার প্রলোভন দেখায়। সিদ্ধান্ত হয়, সোনিয়াকে গর্ভপাত করানোর। কিন্তু বিধি বাম। গাংনীর কোন ক্লিনিক সোনিয়ার গর্ভপাত করাতে রাজি হয়নি। অবশেষে ফিরে আসে সে।

সোনিয়া দেবর হাবিবুরকে এ অনাগত সন্তানের দ্বায়িত্ব নিতে বললে হাবিব কিছু টাকা দিয়ে দ¦ায়মুক্তির প্রস্তাব দেয়। এদিকে প্রভাবশালী এক রাজনৈতিক নেতা ও মাসুদ মেম্বর হাবিবুরের পক্ষ নিয়ে সোনিয়াকে দোষী সাব্যস্ত করে। নির্দোষ প্রমাণ করার চেষ্টা করে হাবিবুরকে।

অবশেষে নিরুপায় হয়ে গাংনী থানায় হাবিবুরকে আসামী করে একটি অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে সোনিয়ার পরিবার।

গাংনী থানার ডিউটি অফিসার বিপ্লব জানান, সোনিয়ার পরিবারের লেঅকজন এসেছিল। তাদেরকে মামলার ব্যাপারে বোঝানো হয়েছে এবং সোনিয়াকে সাথে আনতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।