বানারীপাড়ায় বিএনপি নেতাকে নৌকার কান্ডারী: আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

বরিশালের বানারীপাড়ায় উপজেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি ও ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহবায়ক এবং সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন মৃধাকে উপজেলার সৈয়দকাঠি ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী হিসেবে সুপারিশ করার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় মুজিব অন্তঃপ্রাণ তৃনমূল আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের জনগনের উদ্যোগে বানারীপাড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও প্রেসক্লাব চত্বরে এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি সদস্য মকবুল হোসেন হাওলাদার,সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. আলম বেপারী,প্রচার সম্পাদক জাকির হোসেন মৃধা,২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জগদিশ বাড়ৈ,সিনিয়র সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম মৃধা,সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুজ্জামান,সাংগঠনিক সম্পাদক প্রফুল্ল দেউরী,প্রচার সম্পাদক উজ্জ্বল নাটুয়া,সহ-প্রচার সম্পাদক জগদিশ নাটুয়া,৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোখলেসুর রহমান,সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ঢালী, একই ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম লাভলু, বানারীপাড়া পৌর শাখা শ্রমিকলীগের দপ্তর সম্পাদক জামাল হোসেন প্রমুখ।

 

এসময় তারা আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় সৈয়দকাঠি ইউপি নির্বাচনে প্রস্তাবিত নৌকার প্রার্থী সাবেক বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন মৃধার নাম বাদ দিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতাদের মধ্য থেকে কাউকে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জোর দাবি জানান।  প্রসঙ্গত  ৫ অক্টোবর মঙ্গলবার বিকালে বানারীপাড়া উপজেলা ও বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগ ‘একক’ প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রে সাবেক বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন মৃধার নাম সুপারিশ করে পাঠায়। এ খবর জানার পরে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিএনপি নেতার হাতে নৌকা তুলে দেওয়ায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে স্ট্যাটাস দেন। তাতে আওয়ামী লীগের শত শত নেতা-কর্মী ও সমর্থক নিন্দা জানানোর পাশাপাশি তাদের ক্ষুদ্ধ মন্তব্য তুলে ধরেন।

 

যা ব্যাপক ভাইরাল হয়। এছাড়া দলীয় অফিস থেকে চায়ের দোকানসহ সব আড্ডা আলাপে এ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে। আনোয়ার হোসেন মৃধার গোটা পরিবার বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। তার মেয়ে জামাতা আসাদুল ইসলাম বাদল বানারীপাড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সদস্য এবং দু’ভাতিজা সাইফুল ইসলাম শান্ত উপজেলা ছাত্রদলের বর্তমান যুগ্ম আহবায়ক ও রফিকুল ইসলাম জেলা ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক। আওয়ামী লীগ সরকারবিরোধী সকল আন্দোলন-সংগ্রামে তারা বিএনপির সন্মূখ সারিতে থাকেন।

 

আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা অভিযোগ করেন নৌকার প্রার্থী হিসেবে চাচা সাবেক বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন মৃধার নাম জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সুপারিশ করায় খুশিতে তাৎক্ষনিক তার ছাত্রদল নেতা দুই ভাতিজার নেতৃত্বে ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা সৈয়দকাঠিতে মিলাদের আয়োজন, মিষ্টি বিতরণ ও মোটরসাইকেল মহরা দেয়। উল্লেখ্য সৈয়দকাঠি ইউপি নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আ.মন্নান মৃধাসহ আওয়ামী লীগের ১১ জন নেতা দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী থাকার পরেও দলে অনুপ্রবেশকারী সাবেক বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন মৃধাকে হায়ারে এনে চূড়ান্ত প্রার্থী করে তার একক নাম কেন্দ্রে জমা দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়।

 

শুরুতেই অভিযোগ ওঠে সৈয়দকাঠি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়নকে কেন্দ্র করে বিএনপির শাসনামলের কুশীলবরা স্থানীয় আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতাদের কাঁধে ভরকরে স্বাধীনতার স্ব-পক্ষের শক্তিকে দূর্বল ও কৌশলে বিএনপির রাজনীতিকে ওই ইউনিয়নে শক্ত অবস্থান তৈরি করতে তাদের অঢেল অর্থের বিনিময়ে নৌকার টিকিট পেতে দৌঁড়ঝাঁপ করছেন। অভিযোগ রয়েছে ২০০৩ সালে  বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন মৃধা জোট সরকারের তৎকালীণ প্রভাবশালী হুইপ এবং পিরোজপুর জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী সৈয়দ শহীদুল জামালের আর্শীবাদ সিক্ত হয়ে তার ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে সংখ্যালঘুসহ আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ভোট দিতে না দিয়ে তিনি ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। যদিও আনোয়ার হোসেন মৃধা এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।