এই প্রথম বেনাপোল বন্দরে খালাস হলো অক্সিজেন

পরিবহন খরচ কমাতে এই প্রথম বেনাপোল বন্দরে খালাস হয়েছে ভারত থেকে রেলে আমদানিকৃত ২০০ মেট্রিক টন তরল অক্সিজেন। মঙ্গলবার বিকেলে বেনাপোল বন্দরের ২ নম্বর গেটে রেল থেকে ট্রাঙ্ক লরিতে এ অক্সিজেন খালাস করা হয়।

 

এর আগে এসব অক্সিজেন বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাড় সিরাজগঞ্জে খালাস করা হতো। সোমবার রাতে বেনাপোল বন্দরের রেলপথে ভারত থেকে অক্সিজেন এক্সপ্রেস করে আনা হয় মেডিকেল অক্সিজেন। অক্সিজেন আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান লিন্ডে বাংলাদেশ এবং রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান হলো লিন্ডে ইন্ডিয়া। অক্সিজেনের সমস্ত আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করছে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট মেসার্স সারথী এন্টারপ্রাইজ।

 

আমদানিকারকের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট প্রতিনিধি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আগে রেলে করে আসা অক্সিজেন বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাড় সিরাজগঞ্জে খালাস করা হতো। সেখান থেকে দেশের বিভিন্নস্থানে পাঠানো হতো। এতে খরচ অনেক বেড়ে যেত। এ কারণে এখন থেকে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন এক্সপ্রেস বেনাপোল বন্দর থেকে খালাস করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্নস্থানে পাঠানো হচ্ছে। এতে আমাদের অনেক খরচ কমে যাবে।

মঙ্গলবার ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন ভারতীয় রেল থেকে খালাস করে দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে পাঠানো হয়েছে। অক্সিজেন নামিয়ে খালি ট্রেনটি আবার এ পথ দিয়ে ভারতে ফিরে যায়।

 

বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার সাইদুজ্জামান জানান, ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন নিয়ে আসা ভারতীয় রেলওয়ের অক্সিজেন এক্সপ্রেস এ প্রথম বেনাপোলে অক্সিজেন খালাস করল। এর আগে ২৪ জুলাই ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরের রেল পথে ভারত থেকে অক্সিজেন আমদানি শুরু হয়। এ পর্যন্ত ৪ হাজার মেট্রিক টন অক্সিজেন আমদানি হয়েছে।

 

বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব অফিসার সাইফুর রহমান মামুন জানান, অক্সিজেনবাহী ভারতীয় ট্রেনটি বেনাপোল বন্দরের রেলওয়ে স্টেশনে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে দ্রুত কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে মঙ্গলবার খালাস দেওয়া হয়েছে। বেনাপোল থেকে লিন্ডে বাংলাদেশের অক্সিজেনবাহী ট্যাঙ্কারে এ অক্সিজেন খালাস করা হয়।