মোংলায় সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও মতবিনিময় সভা

মোংলায় সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও মতবিনিময় সভায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টায়
মোংলা থানা পুলিশের আয়োজনে থানা ভবন চত্বরে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আঃ রহমান। এ সময় অন্যান্যের বক্তৃতা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার, মোংলা-রামপাল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আসিফ ইকবাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুনীল কুমার বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম হোসেন, মোংলা ইমাম পরিষদের সভাপতি মাওলানা রেজাউল করিম, পুজা উদযাপন পরিষদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক উদয় শংকর রায়, শেহলাবুনিয়া ক্যাথলিক চার্জের পালক পুরোহিত ফাদার দানিয়েল মন্ডল ও প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন আমু।সভায় বিভিন্ন মসজিদের ইমাম, মন্দিরের পুরোহিত ও গীর্জার ফাদারসহ স্থানীয় সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের বিপুল সংখ্যক লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

 

সভায় বক্তারা বলেন, আমরা সবাই এদেশের নাগরিক, আমাদের পরিচয় আমরা বাঙ্গালী, বাংলাদেশী। তাই আমরা হিন্দু, মুসলমান ও খ্রিস্টান ভাই-বোনের মত মিলে মিশে থাকবো। তারা আরো বলেন, কুমিল্লার ঘটনা একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা, সেটির বিষয়ে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

 

এমন ঘটনা আর কোথাও না ঘটে সেজন্য আমাদের সকলকে একসাথে সজাগ থাকতে হবে।সভায় পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি পীযুষ কান্তি মজুমদার বলেন, আমাদের এখানে এখনও অনেক মন্দির-মন্ডপে প্রতিমা রয়েছে, সেগুলো আপনারা বিসর্জন দিয়ে দিবেন, নতুবা নিজ নিরাপত্তার রাখবেন। কারণ এগুলো রেখে আমরা কুচক্রীদের নোংরামীর সুযোগ না দিই। যারা প্রতিমা রাখবেন তাদেরকে থানায় মুচলেকা দিয়ে নিজ দায়িত্বে রাখতে হবে।

 

ইমাম পরিষদের সভাপতি মাওলানা রেজাউল করিম বলেন, সংঘাত যেমন ইসলাম ধর্ম সমর্থন করেনা, তেমনি অন্য ধর্মেও তা সমর্থন করেনা। ইসলাম শান্তি-সম্প্রীতির শিক্ষা দেয়। আমরা সকলেই ইসলামের আদর্শ ধারণ করি। আমরা সকলে মিলে মিশে শান্তিতে বসবাস করে আসছি, ভবিষ্যৎতেও তার ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে।