শার্শায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ

যশোরের শার্শা উপজেলার গোগা ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছেন।

 

অভিযোগ উঠেছে, এ ইউপিতে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর তার সমর্থকরা আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী তবিবর রহমানের সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়েছে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) সকাল ৯টার সময় তবিবর রহমান ঢাকা থেকে শার্শার বাগআঁচড়ায় ফিরলে তাকে আনতে সমর্থকেরা গোগা বাজার অতিক্রম করার সময় বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদের সমর্থকেরা অতর্কিত হামলা করে। হামলায় তবিবর রহমানের প্রায় ৫০ জন সমর্থক আহত হন। তার মধ্যে ১৩ জনের অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে।

 

এলাকাবাসী জানান, ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থিতাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী বিরাজ করছিল। তারই ধারাবাহিতায় শুক্রবার (২২ অক্টোবর) বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ মনোনয়ন পাওয়ায় তার সমর্থকেরা তবিবর রহমানের লোকজনের ওপর হামলার পরিকল্পনা করে। তার ফলশ্রুতিতে শনিবার এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোগা ইউনিয়নের সদস্য ও চেয়ারম্যান মনোনয়নপ্রত্যাশী তবিবুর রহমান বলেন, আমি ঢাকায় গিয়েছিলাম দলীয় মনোনায়নের জন্য। ঢাকা থেকে ফিরছি এমন সংবাদের ভিত্তিতে সমর্থকরা আমাকে এগিয়ে নিতে গোগা বাজারে এলে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে আসা বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদের সমর্থকরা আমার সমর্থকদের ওপর হামলা চালায়। এতে আমার প্রায় ১৩ জন গুরুতরসহ ৫০ জন সমর্থক আহত হন।

 

গোগা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ বলেন, আমি যেহেতু মনোনয়ন পেয়েছি তাই আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সমর্থকদের মিছিল সহকারে বাজারে আসা উচিৎ হয়নি। আমি সবার সঙ্গে মিলেমিশে নির্বাচন করতে চাই। যাদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছে তারাও আওয়ামী লীগের।

শার্শা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) তরিকুল ইসলাম বলেন, সকালে তবিবার রহমান নামে একজন মেম্বারকে তার সমর্থকরা মিছিল নিয়ে রিসিভ করতে গেলে গোগা বাজারের প্রবেশমুখে দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এতে স্থানীয় দুইজন ইউপি সদস্যসহ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

 

শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম খান বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। দু’পক্ষের সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হয়েছে। তবে এ বিষয়ে থানায় এখনো কোনো অভিযোগ হয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আগামী ২৮ নভেম্বর শার্শার ১০ টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্টিত হবে।