সুড়ঙ্গ সড়ক পাল্টে দেবে কক্সবাজারের দৃশ্যপট

২ হাজার ৫১ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হাজারো চোখধাঁধানো মনোরম পরিবেশে সৈকতে গড়ে তোলা সুড়ঙ্গ সড়ক এবার পাল্টে দেবে কক্সবাজারের চিরচেনা দৃশ্যপট। ১২ ফুট উচ্চতায় সৈকতের তীর ঘেঁষে তৈরি দৃষ্টিনন্দন সড়কের দৈর্ঘ্য হবে ১২ কিলোমিটার। এই সুড়ঙ্গের ভেতরে থাকবে শপিংমল, উন্নতমানের রেস্তোরাঁ, কফিশপ, মালামাল রাখার লকার, ওয়াশরুম, চেয়ারে বসে কাচের জানালা নিয়ে সমুদ্র দেখাসহ বিনোদনের আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা। এই সড়কের পশ্চিম পাশে বা সমুদ্রের দিকে থাকবে বাইসাইকেল ও পায়ে হাঁটার পৃথক রাস্তা। থাকবে সমুদ্রতলের প্রাণিজগতের রহস্য দেখার অ্যাকুয়ারিয়াম, সড়কের মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকবে দৃষ্টিনন্দন ভাস্কর্যের অপরূপ সমাহার। বিনোদন পার্ক, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য লালনের মুক্তমঞ্চ, বিদেশি পর্যটকদের অবকাশযাপনে পৃথক ব্যবস্থাও থাকবে যথারীতি । দিনের চেয়ে রাতের আলোঝলমল সড়কটি পর্যটকদের বিমোহিত করবে আরো কয়েকগুণ ।

সুড়ঙ্গ সড়ক পাল্টে দেবে কক্সবাজারের দৃশ্যপট

বিশ্বের দীর্ঘতম কক্সবাজার সৈকতের কলাতলী থেকে নাজিরারটেক পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার বালুচরে বসবে এই সুড়ঙ্গপথ।  দীর্ঘদিন ধরে যাঁরা ঘিঞ্জি সৈকতের বালুচরে ঝুপড়ি দোকানপাট, ময়লা-আবর্জনা আর অব্যবস্থাপনা দেখতে দেখতে হতাশ, তাঁদের জন্য সুড়ঙ্গ সড়ক বয়ে আনবে নতুন খুশির বার্তা। সৈকত থেকে অস্থায়ী সব ঝুপড়ি দোকানপাট উচ্ছেদ করে সে জায়গায় এ রকম একটি দৃষ্টিনন্দন সড়ক তৈরি হলে পর্যটনের সম্ভাবনা যেমন খুলে যাবে, তেমনি বিশ্বের দীর্ঘতম এই সৈকতের প্রতি মানুষের আকর্ষণও বাড়বে বহুগুণ। একইসাথে পাল্টে যাবে শত বছরের চেনাজানা সৈকতের পুরোনো দৃশ্যপট। স্বপ্ন নয়, এটি বাস্তবে পরিণত হতে গেলে অপেক্ষায় থাকতে হবে ৪ বছর।

আরও পড়ুনঃ  মডেল-অভিনেত্রী রোমানা গ্রেফতার: সাবেক স্বামীর মামলা

১২ কিলোমিটারের সুড়ঙ্গ সড়কটি তৈরিতে ব্যয় হবে ২০৫১ কোটি ২০ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। সড়ক প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। পাউবো কক্সবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী বলেন, ২০৫১ কোটি টাকার এই সড়ক প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য গত বছরের ডিসেম্বরে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। গত ৪ জানুয়ারি মন্ত্রণালয়ে যাচাইবাছাই কমিটির সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন দিয়েছে। এখন জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) উত্থাপনের জন্য প্রকল্পটি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে রয়ছে। এটি বাস্তবায়নে সময় লাগবে ৪ বছর।২০২৪ সালের জুন মাসে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। চলতি মার্চ মাসে একনেকে প্রকল্পটি অনুমোদন পেলে আগামী এপ্রিল মাস থেকে সড়ক নির্মাণের কাজ শুরু হবে

আরও পড়ুনঃ মমতার আরোগ্য কামনায় তৃণমূলের তারকারা