গাংনী পৌর মেয়র মানুষকে সস্তায় তরমুজ খাওয়াচ্ছেন

শুধু ঘোষণা নয় বাস্তবায়ন ও করে দেখালেন গাংনী পৌরসভার মেয়র আহম্মেদ আলী। তরমুজ সিন্ডিকেট না ভাঙলে পৌরসভার পক্ষ থেকে ন্যায্য দামে তরমুজ, ডাব ও আনারস বিক্রি করা হবে।

গাংনী পৌর মেয়র মানুষকে সস্তায় তরমুজ খাওয়াচ্ছেন
গাংনী পৌর মেয়র মানুষকে সস্তায় তরমুজ খাওয়াচ্ছেন

আওয়ামী লীগ নেতা ও মেয়র আহম্মেদ আলী  জানান, শুধু তরমুজ নই, সিন্ডিকেটের মাধ্যমে যেকোনো পণ্য বিক্রি হলেই গাংনী পৌরসভা ন্যায্য মূল্যে সেই সব পণ্য জনগণের মাঝে পৌঁছে দেবে। গাংনীতে আগামীতে কোনো ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ব্যবসা করতে পারবেনা।

পৌর মেয়র আহম্মেদ আলী বলেন, একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে তরমুজ বিক্রির ফলে ক্রেতাদের নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে। তারা তরমুজ বিক্রি করায় ক্রেতা ভোক্তাদের কথা বিবেচনা করে পৌরসভার পক্ষ থেকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যতদিন ক্রেতাদের চাহিদা থাকবে ততদিন সহনীয় মূল্যে তরমুজ সরবরাহ করা হবে।

জানা গেছে, গাংনী পৌরসভার তরমুজ বাজারে মাইকিং করে প্রচারণার মাধ্যমে ৩০-৪০ টাকা দামে তরমুজ বিক্রি করা হচ্ছে। তরমুজের আকারভেদে দামের এ তারতম্য। এতে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে ক্রেতাদের মধ্যে। সোমবার (২৬ এপ্রিল) দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তিন ট্রাক তরমুজ বিক্রি করেছে পৌরসভা। 

পৌর কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার কয়েকজন কর্মচারী, কাউন্সিলর ও স্থানীয় কিছু যুবক স্বেচ্ছাশ্রমের মধ্য দিয়ে তরমুজ বিক্রির কার্যক্রম চালাচ্ছেন। ক্রেতাদের স্বস্তির কথা মাথায় নিয়ে এ সেবা দিচ্ছেন তারা।

মেয়র আহম্মেদ আলীর অভিযানে গাংনীর মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন। মেয়র আরও বলেন, রমজান মাসে মানুষকে সেবা দেওয়ার পরিবর্তে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অধিক মুনাফা করতে সিন্ডিকেট গড়ে তুলে ব্যবসা করছেন। তাদের অতিরিক্ত মুনাফা অর্জন সাধারণ মানুষ নাভিশ্বাস ফেলেছেন। আজকে ব্যবসায়ীদের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত দামে এখন থেকে বিক্রি করলে পৌরসভার পক্ষ থেকে আগামীতে তরমুজ বিক্রির ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ধরনের উদ্যোগকে শুভ উদ্যোগ বলে আখ্যায়িত করে কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) মেহেরপুর জেলা শাখা সভাপতি রফিকুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক মাজেদুল হক মানিক বলেন, ক্রেতা-ভোক্তাদের স্বার্থ বিবেচনায় মেয়র আহম্মেদ আলীর মতো এ উদ্যোগ সারা দেশের জনপ্রতিনিধিরা যদি গ্রহণ করতেন তাহলে ভোক্তা স্বার্থ রক্ষা হবে।