তৃতীয় সন্তানও মেয়ে হওয়ায় পুকুরে ফেলে দিলেন মা

তিন মেয়ের পর আবারও মেয়ে সন্তান জন্মগ্রহণ করায় আট দিন বয়সী নবজাতককে গলা টিপে হত্যার পর পুকুরের পানিতে ফেলে দিয়েছেন এক মা। সাতক্ষীরার তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নের রায়পুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (০২ জুন) ভোরে নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় মাকে আটক করলেও বাবা পলাতক রয়েছেন।

তৃতীয় সন্তানও মেয়ে হওয়ায় পুকুরে ফেলে দিলেন মা

আটক শ্যামলী ঘোষ (৩৫) খলিলনগর ইউনিয়নের রায়পুর গ্রামের মানিক ঘোষের স্ত্রী। 

স্থানীয়রা জানান, ২৫ মে রাতে মানিক ঘোষ ও শ্যামলী দম্পত্তির একটি মেয়ে সন্তান জন্ম হয়। তাদের আগে তিনটি মেয়ে সন্তান রয়েছে। জন্মের পর থেকে স্বামী বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়। মঙ্গলবার (০১ জুন) সকাল থেকে নবজাতকটি নিখোঁজ ছিল। পরে গ্রামবাসীসহ পরিবারের সদস্যরা খোঁজাখুঁজি শুরু করে। পরে রাতে বাড়ির পাশে পুকুরে নবজাতকটির মরদেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেওয়া হয়।

খলিলনগর ইউনিয়নের রায়পুর গ্রামের বাসিন্দা আজমীর হোসেন জানান, ছেলে সন্তানের আশায় বাচ্চা নিয়ে মেয়ে হয়েছে। সে কারণে রাগ করে নবজাতকটিকে মেরে ফেলেছে।

খলিলনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান লিটু জানান, ঘটনাস্থলে চৌকিদারকে পাঠানো হয়েছিল। চৌকিদার ফিরে এসে জানিয়েছে শ্যামলী ঘোষের স্বামী মানিক ঘোষ বলেছেন, তিন মেয়ের পর আবার মেয়ে হয়েছে।এ মেয়েকে মেরে না ফেললে তোকে আমি বাড়িতে রাখব না। সে স্বামীর কথামতো নবজাতকটিকে মেরে পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়। পরে রাতে পুলিশ নবজাতকটির মরদেহ উদ্ধার করে।